১৪ জুন এসসিও শিখর সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

0
484
Shanghai Cooperation Organization Meet - PM Modi Leaves for the Meeting
Shanghai Cooperation Organization Meet - PM Modi Leaves for the Meeting

১৪ জুন এসসিও শিখর সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

By PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ১৪ জুন, ২০১৯

কিরঘিজ প্রজাতন্ত্রের মাননীয় রাষ্ট্রপতি, এবং আজকের বৈঠকের চেয়ারম্যান, উপস্থিত সুধীবৃন্দ, আমার সহকর্মীরা এবং বন্ধুরা,

প্রথমেই আমি এসসিও শিখর সম্মেলনে যোগ্য নেতৃত্বের জন্য রাষ্ট্রপতি জিনবেকভ এবং কিরঘিজ প্রজাতন্ত্রকে অভিনন্দন জানাবো। বিপুল আতিথেয়তা এবং অভ্যর্থনার জন্য আমি তাঁকে ধন্যবাদ জানাবো। সাংহাই সহযোগিতা সম্মেলনের নেতৃবৃন্দের এই বৈঠকে যোগ দিতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। গত দুই বছর ধরে ভারত এসসিওর পূর্ণকালীন সদস্য। এই সংগঠনের সব কাজে আমাদের সদর্থক ভূমিকা রয়েছে। আন্তর্জাতিক স্তরে এসসিও-র ভূমিকা এবং গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে আমাদের অঙ্গীকার অব্যাহত থাকবে।

সুধীবৃন্দ,

হাজার হাজার বছর ধরে ভারতের ইতিহাস, সভ্যতা এবং সংস্কৃতির সঙ্গে এসসিও অঞ্চলের যোগাযোগ রয়েছে। বর্তমান যুগে এই অঞ্চলের সঙ্গে আমাদের আরো যোগাযোগ বাড়ানো  প্রয়োজন। ভারতের সঙ্গে আরো উন্নত যোগাযোগের লক্ষে  আন্তর্জাতিক উওর দক্ষিণ পরিবহণ করিডোর, চাবাহার বন্দর, আসঘাবাদ চুক্তির মতন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমরা আকাশপথে ২০১৭ সাল থেকে কাবুল ও কান্দাহারের সঙ্গে নতুনদিল্লী ও মুম্বাই এর মধ্যে পণ্য পরিবহণ করছি। সার্বভৌমত্ব, আঞ্চলিক অখন্ডতা, সুশাসন, স্বচ্ছতা, বাস্তবতা এবং বিশ্বাসযোগ্যতাকে সম্মান জানিয়ে এই যোগাযোগ বৃদ্ধির প্রয়াস বজায় রাখতে হবে। মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগও এখানে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। এসসিও জোটভুক্ত দেশগুলির বেশিরভাগের সঙ্গেই আমাদের দেশে  ই-টুরিস্ট ভিসা পাওয়ার সুবিধে রয়েছে।   আমি আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি , খুব শিগগিরি ভারতীয় পর্যটন দপ্তরের ওয়েবসাইটে সবসময়ের জন্য রুশ ভাষায় একটি হেল্পলাইন ব্যবস্থা চালু হতে চলেছে। এরফলে এসসিও জোটভুক্ত দেশগুলির পর্যটকদের সুবিধে হবে।


সুধীবৃন্দ, 
 

এসসিও অঞ্চলের স্থিতিশীলতা এবং নিরাপত্তার জন্য ঐক্যবদ্ধ, শান্তিপূর্ণ, নিরাপদ ও সমৃদ্ধশালী আফগানিস্থানের প্রয়োজন। আফগানদের নেতৃত্বে তাঁদের নিয়ন্ত্রিত সমন্বিত শান্তিপ্রক্রিয়ার জন্য আফগানিস্তানের সরকার এবং জনগণের উদ্যোগকে আমাদের সমর্থন করতে হবে। আমরা আনন্দিত যে, এসসিও আফগানিস্তান যৌথ গোষ্ঠীর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তৈরি হয়ে গেছে। 

সুধীবৃন্দ,

আমাদের অঞ্চলে সুস্থ সহযোগিতার বাতাবরণের জন্য আমাদের একটি লক্ষ থাকতে হবে। ইংরেজিতে হেলথ শব্দটির অক্ষরগুলি আমাদের যৌথ প্রয়াসের মানদন্ড হতে পারে।

এখানে H স্বাস্থ্যক্ষেত্রে সহযোগিতা, E আর্থিক সহযোগিতা, A বিকল্প শক্তি, L সাহিত্য ও সংস্কৃতি, T সন্ত্রাসবাদ মুক্ত সমাজ আর H মানবিক সহযোগিতার জন্য মানদন্ড হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে। 

স্বাস্থ্যক্ষেত্রে সহযোগিতা

স্বাস্থ্যক্ষেত্রে ২০১৯ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এসসিওর যে পরিকল্পনা রয়েছে, আমাদের তার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। টেলি-মেডিসিন এবং স্বাস্থ্য পর্যটনে ভারত আনন্দের সঙ্গে তার অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেবে। 

আর্থিক সহযোগিতা

আমাদের জনগণের ভবিষ্যতের ভিত্তিই হল আর্থিক সহযোগিতা। কারুর জন্যই একপেশে সংরক্ষণবাদ ভালো হতে পারে না। বিশ্ব বানিজ্য সংস্থার নির্দিষ্ট নিয়মে আমাদের জন্য স্বচ্ছ, বৈষম্যহীন, মুক্ত ও সমন্বিত বহুস্তরীয় একটি বাণিজ্য পরিবেশের প্রয়োজন। যার মাধ্যমে বিকাশশীল দেশ সহ সব সদস্যদের স্বার্থ সুরক্ষিত থাকবে। এসসিও গোষ্ঠীভুক্ত রাষ্ট্রগুলির মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ আর্থিক পরিবেশ গড়ার লক্ষে ভারত অঙ্গীকারবদ্ধ। সংগঠনের সদস্যদের মধ্যে আর্থিক বিষয়, ডিজিটাইজেশন এবং আইসিটিতে সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষে আজ আমরা গুরুত্বপূর্ণ কিছু চুক্তি স্বাক্ষর করবো। 

বিকল্প শক্তি,

জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা সমাধানে ভারতের অঙ্গীকার আসলে অন্তর্নিহিত আছে, আমাদের দর্শনে, যেখানে আমরা পৃথিবীকে মাতৃজ্ঞানে শ্রদ্ধা করি। আজ ভারত পুণর্ব্যবহারযোগ্য শক্তি উৎপাদনে বিশ্বে ষষ্ঠ এবং সৌরশক্তি উৎপাদনে পঞ্চম স্থানে রয়েছে। ভারত আন্তর্জাতিক সৌর জোটের অন্যতম উদ্যোক্তা। সৌরশক্তি উৎপাদনের ব্যয় কমাতে জোটের লক্ষ হল প্রযুক্তি এবং বিনিয়োগের পরিমাণ বৃদ্ধি করা। এই উদ্যোগে আমরা এসসিও গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলিকে স্বাগত জানাচ্ছি। বিকল্প শক্তির উৎসের উন্নয়ণে আমরা আমাদের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে প্রস্তুত। এসসিও র উদ্যোগে পরিবেশ রক্ষার জন্য ২০১৯-২১ সালের মধ্যে সহযোগিতার একটি চুক্তির বিষয়ে আজ আমরা সহমত পোষণ করেছি। 

সাহিত্য ও সংস্কৃতি


আমাদের তরুণদের মধ্যে সাহিত্যের আদানপ্রদান আমাদের সম্পর্ককে নিবিড় করবে। ভারতীয় সাহিত্যের ১০টি সেরা সৃষ্টি এসসিও গোষ্ঠিভুক্ত রাষ্ট্রগুলির ভাষায় অনুদিত হবে। উজবেকিস্তানের সহযোগিতায় তাশখন্দে সাম্প্রতি সফলভাবে এসসিও চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল, যেখানে বলিউড এবং উজবেক চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়েছে। আমাদের সমাজে সাহিত্য সংস্কৃতির চর্চা অত্যন্ত গঠনমূলক। কারণ এর মধ্যে দিয়ে সমাজে তরুণদের মধ্যে উগ্রপন্থার প্রসার প্রতিহত করা যাবে। 

সন্ত্রাসবাদ মুক্ত সমাজ


গত রবিবার আমি শ্রীলঙ্কা সফরের সময় সেন্ট আন্টনি গির্জায় গিয়েছিলাম। আমি সেখানে সন্ত্রাসবাদের নির্লজ্জ রূপ দেখেছি। এই জিনিষ যে কোন সময়ে যে কোন জায়গায় ঘটছে, আর রোজ নিরীহ মানুষের প্রাণ যাচ্ছে। এই ভয়াবহ বিপদের মোকাবিলায় সব মানবিক শক্তিকে নিজেদের ক্ষুদ্র গন্ডি থেকে বেড়িয়ে এসে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। যেসব দেশ জঙ্গি কার্যকলাপে মদত দেয়, অর্থ সাহায্য করে , তাদের থেকে কৈফিয়ত তলব করতে হবে। এসসিও সদস্যদের সন্ত্রাসবাদকে নির্মূল করার লক্ষে এসসিও র‍্যাট-এর মাধ্যমের সক্রিয় হতে হবে। জঙ্গি তৎপরতা রুখতে ভারত একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আহ্বান করেছে। 


মানবিক সহযোগিতা

যে কোন বিপর্যয়ে দ্রুত মানবিক সহযোহিতামূলক তৎপরতায় ভারত এই অঞ্চলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এসসিও দেশগুলির সঙ্গে আমরা আমাদের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে পারলে খুশি হব। বিপর্যয় মোকাবিলায় পরিকাঠামোর জন্য আমাদের বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। 

সুধীবৃন্দ, 

আমি বিসকেক ঘোষণাকে স্বাগত জানাচ্ছি ; সহযোগিতার জন্য একটি প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা হিসেবে ]আমি আবারো  এবারের সম্মেলনের আয়োজক, মাননীয় রাষ্ট্রপতি জিনবেকভকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আগামী বছর এসসিওর নেতৃত্বদানের দায়িত্ব পাওয়ার জন্য আমি রাষ্ট্রপতি পুটিনকে আমার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। এসসিওর সভাপতি হিসেবে রাশিয়ান ফেডারেশনকে ভারতের পক্ষ থেকে সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাস আমি দিচ্ছি।

ধন্যবাদ