ইভিএম মেশিনে নয় ব্যালটে ভোট চাই ইভিএম কারচুপি রুখতে পারলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হ্যাট্রিক করবেন

0
404
Election Commission of India clarifies Credibility of Electronic Voting Machines
Election Commission of India clarifies Credibility of Electronic Voting Machines

ইভিএম মেশিনে নয় ব্যালটে ভোট চাই ইভিএম কারচুপি রুখতে পারলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হ্যাট্রিক করবেন

ফারুক আহমেদ

ইভিএম মেশিনে নয় ব্যালটে ভোট চাই। কারণ ইভিএম মেশিনের কারচুপি রুখতে পারলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার হ্যাট্রিক করেই আবারও সরকার গড়বেন।

সালটা ১৯৯৩ সাল। নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনার জন্য ভোটার কার্ডের দাবিতে ২১ জুলাই মহাকরণ অভিযানের ডাক দিয়েছিলেন তৎকালীন যুব কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও এই কর্মসূচি করার কথা ছিল ১৪ জুলাই। কিন্তু সে বছর ওই সময় প্রাক্তন রাজ্যপাল নুরুল হাসানের প্রয়াণের জন্য কর্মসূচি পিছিয়ে ২১ জুলাই করা হয়। ১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই মমতার ডাকে মহাকরণ অভিযান কর্মসূচিতে কলকাতার রাজপথে রক্ত ঝরেছিল। পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছিলেন ১৩ জন কংগ্রেস কর্মী, এমন অভিযোগই করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব। এ ঘটনায় রীতিমতো উত্তাল হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি। এ ঘটনার পর থেকেই প্রতিবছর এদিনটিকেই ২১ জুলাই শহিদ দিবস হিসেবে পালন করে তৃণমূল কংগ্রেস।

ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দলের সঙ্গে লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস জোট করে লাড়াই করলে মঙ্গল হবে এবং বিভেদকামী শক্তিকে রোখা যাবে। ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে বিভেদকামী শক্তিকে প্রতিহত করতে ধর্মনিরপেক্ষ শক্তির উত্থান জরুরি ছিল।

আগামীতে দেশবাসীকে বিভাজনের রাজনীতিতে বিশ্বাসী রাজনৈতিক দলগুলোর উচিত শিক্ষা দিতে এবং তাদের পতন সুনিশ্চিত করতে তাদের বিরুদ্ধে জোটবদ্ধভাবে ভোট দিয়ে সম্প্রীতির ভারতকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসতে হবে। 

বাংলার মানুষ ইতিহাস তৈরি করবেন ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে। বিজেপি এনআরসি নিয়ে মাতামাতি করতেই হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষজন তাদের পাশ থেকে দূরে সরে এসেছেন। সর্বত্র বিজেপির সমর্থকেরা তাদের ছেড়ে চলে আসছেন অন্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গে।

সবাই জানেন, ২০১৯ সালের ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে ইভিএম মেশিনে নয় ব্যালট পেপারে ভোট করানোর জোরালো আবেদন করলেন এবং বিভেদকামী শক্তির পতন ঘটিয়ে ধর্মনিরপেক্ষ শক্তির জয় সুনিশ্চিত করার ডাক দিলেন বাংলার মানুষের প্রিয় দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

২০২১ বিধানসভা ভোটে তৃণমূল কংগ্রেস বিপুল সংখ্যক মানুষের আর্শীবাদ নিয়ে পুনরায় সরকার গড়তে চলেছেন এবং দৃঢ়ভাবে মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে প্রতিজ্ঞাবাক্য ব্যবহার করলেন ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাটমানি নিয়ে যে সাহস দেখাতে পারলেন তাতে তিনি বাংলার ও দেশের মানুষের মন জয় করে নিলেন।  

একুশের মঞ্চ থেকে নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  উল্লেখযোগ্য বার্তা ছিল।

” ১। আজকে সূর্য হাসছে। তেজ দিচ্ছে তেজ। আরও তেজদৃপ্ত হও। উঠে দাঁড়াও, রুখে দাঁড়াও। জাগো জাগো জাগো।

২। ১৮ টা পেয়েছে। তিন চারটে আসনে দু হাজার, তিন হাজার ভোটে জিতেছে। আবার ভোট হলে টোটালটাই উল্টে যাবে।

৩। বিজেপি নেতারা কান খুলে শুনুন। আপনাদের নেতা বলছে, বাস থেকে টেনে নামাবেন। তৈরি থাকুন। আগামী দিন মিটিং মিছিল করবেন তো, এর পাল্টা যদি আমাদের লোকেরা দেয়, পারবেন তো!

৪। বিজেপি-কে ভোট দিলে ভাটপাড়া হয়। বুঝতে পারছেন।

৫। তুই সবচেয়ে বড় ডাকাত। ৩৪ বছর ধরে সিপিএম কত টাকা ফিরিয়েছে। আর বড়লোকের দল হলে প্লেনেও ধাক্কা দেয় না। তৃণমূল গরিবের দল। তাতে টিকটিকিতে ঠোকায়।

৬। কত গুলো কুচো চিংড়ি আর কতগুলো ল্যাঠা মাছেদের বড় বড় কথা। ২৬ তারিখ প্রোগ্রাম দিচ্ছি। ব্ল্যাক মানি ফিরিয়ে দাও আন্দোলন হবে। চোরেদের সর্দার, ডাকাতদের সর্দার বলছে কাটমানি ফিরিয়ে দাও। ইলেকশনে কত টাকা একেক জন নিয়েছে।

৭। যাঁরা কেন্দ্রীয় সরকারের সমান মাইনে চান, তাঁরা কেন্দ্রে চলে যান। কেন্দ্রে করলে কেন্দ্রের মতো, রাজ্যে করলে রাজ্যের মতো।

৮। সিপিএমের যারা হার্মাদ, তারা আজ বিজেপি-র ওস্তাদ। এরা এখন নতুন বোতলে পুরনো মদ।

৯। বিজেপি একটা পরগাছা এখানে। কিচ্ছু নেই। কখনও সিপিএমের কানে কানে। কখনও কংগ্রেসের কানে কানে।

১০। শতাব্দী রায় বলছিল, দিদি দেখো ভোট হয়ে গেছে, আমাকে ইডি ডেকেছে। ডেকেই বলছে তুমি বিজেপি-র ওমুক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করো। না করলে তোমার সুদীপের মতো, তাপসের মতো হবে।

১১। এতো ভোট পেয়েও তোমার এখনও লোভ যায়নি। গোয়া ভাঙতে হবে, কর্নাটক ভাঙতে হবে, এতো ভাঙতে ভাঙতে তোমার কোমর ভেঙে যাবে।

১২। কখনও সংখ্যালঘুদের উপরে অত্যাচার, কখনও দলিতদের উপরে অত্যাচার। আমার কাছে এক ভিডিও রয়েছে। এক বিজেপি নেতা বলছে, হিন্দুদের মরতে দাও, তবেই আমরা জিতব।

১৩। ইভিএম চাই না, ব্যালট চাই। আমাদের এখানে যত ভোট হবে সব ব্যালটে করুন। পুরসভা, পঞ্চায়েত ভোট ব্যালটে হবে।

১৪। আমি সব সহ্য করতে পারি। কিন্তু বাংলা মায়ের অসম্মান সহ্য করতে পারি না।

১৫। তৃণমূল কংগ্রেস উন্নততর চরিত্র তৈরি করুক। আদর্শ দল হয়ে উঠুক।

১৬। কংগ্রেস আর সিপিএমকে বলছি যে ডালে বসে আছো, সেই ডাল কেটে ফেলো না। আজ তোমার সাইনবোর্ড বিজেপি নিয়ে নিয়েছে।

১৭। কমিশন বলছে, তোমার ন্যাশনাল স্টেটাস থাকবে না। আমি ইন্টারন্যাশনাল স্টেটাস করব। তোর ন্যাশনাল স্টেটাস আমার চাই না।

১৮। যারা যারা টাকা নিয়ে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে তাদের আইডেনটিফাই করুন।

১৯। পে কমিশন যতটা পারব করব। ১২৩ পারসেন্ট ডিএ দিয়েছি।

২০। কেউ কেউ আমার মৃত্যু কামনা করে। কিন্তু আমি মৃত্যুকে ভয় পাই না।

২১। সহযোগিতা চাইলে সহযোগিতা করব। ধমকে চমকে কিছু হবে না। ধমকালে আমি গর্জাই, চমকালে আমি বর্ষাই।”

সোনার বাংলাসহ মহান ভারতের সর্বত্র যে চোরা স্রোত বইছে, তার বিরুদ্ধে জনগণকে সতর্ক করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারাও কেউ কেউ সোচ্চার হয়েছেন। 

বাংলার অগ্নিকন্যা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোচবিহার থেকে কাকদ্বীপ, বহরমপুর থেকে আসানসোল, আসাম থেকে দিল্লি চষে বেড়াচ্ছেন, এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্ত। সেই সঙ্গে চলছে পদযাত্রা। যত বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে পারেন। ভোট প্রচারে ঝড় তুলেছেন অনেকেই। তবে বাংলায় মমতার ধারে কাছে কেউ নেই। জনসভা আর পদযাত্রাই হোক, ভোট প্রচারের জন্য বাংলা এখন মমতাময়। আর সেই ভয়ে বিরোধী মুখ সব আতঙ্কে চুপসে গেছে। তাই এবারের বিধানসভার ভোটে রাজ্যে মমতার অবস্থান আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

বাংলাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে দিয়েছেন এনআরসি করতে দেবেন না।

তৃণমূলের জয়জয়কার দেখার আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল দলের  ভয় একটাই ঘর শত্রু বিভীষণরাই না সে পথে কাঁটা বিছিয়ে দেন। এ দিকে নজর দেওয়ার দরকার নেত্রীর। নইলে ২৯৪-এর মধ্যে ২৩৪-এর স্বপ্ন অধরাই রয়ে যাবে। নব্য তৃণমূলী অর্থাৎ পুরোনো সিপিএমরাই কলেজ সার্ভিস কমিশন ও বিভিন্ন জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তারাই সদস্য, চেয়ারম্যান হয়ে যাচ্ছেন। এর ফলে চাকরিতে তৃণমূল কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ থাকছে না। সর্বত্র নব্য তৃণমূলী অর্থাৎ পুরাতন সিপিএমরাই দাদাগির দেখিয়ে তারাই সব ক্ষেত্রে গুরুত্ব পাচ্ছেন। বাংলার আদি তৃণমূল কংগ্রেসের সৈনিকরা সর্বত্র বঞ্চিত ও অপমানিত হচ্ছেন। এর প্রতিকার না হলে বিরোধী দলের পতন সুনিশ্চিত করা অসম্ভব হয়ে উঠবে আগামীতে।

চৌত্রিশ বছরের বাম শাসনের অনিয়মকে একধাক্কায় সরিয়ে দিয়ে বাংলাকে নতুন জীবন দেওয়া এক দুঃসাধ্য কাজ। সেই কঠিন কাজ নিপুণভাবে সামলেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর মমতার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন গ্রামবাংলার মানুষ। তারই ফলশ্রুতি হিসেবে বিগত ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত, বিধানসভা, পৌরসভার নির্বাচনে হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের জয়জয়কার। সন্ত্রাস, সারদাকাণ্ড, নারদ কান্ড, কামদুনি, পার্ক স্ট্রিট কাণ্ড ইত্যাদি ঘটনার পর অনেকেই ভেবেছিলেন, মানুষ তৃণমূল কংগ্রেসের জমানায় নির্বাচনে পাল্টা চাল দেবেন। কিন্তু গ্রামবাংলার মানুষ কার্যত সেই আশায় জল ঢেলে মমতার উপর সম্পূর্ণ আস্থা রেখেছেন। পঞ্চায়েত, পৌরসভা ও উপনির্বাচনের ফলেই প্রমাণিত যে, সাধারণ মানুষ মর্মে মর্মে জানে এই সরকারই সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারবে। 

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন প্রথম সরকারে আসেন তখন তাঁর সামনে যে-দুটি মূল সমস্যা হাজির হয়েছিল তা হল জঙ্গলমহল ও পাহাড়। রাজ্যের সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিল মাওবাদ। মাওবাদ দমনে তিনি কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন। জঙ্গলমহলের জন্য তিনি আলাদা প্রকল্প ঘোষণা করেন। তাদের পূনর্বাসনের ব্যবস্থা নেন। জঙ্গলমহলের জন্য পৃথকভাবে পুলিশ ও হোমগার্ড নিয়োগ করেন।

দুটাকা কিলো দরে চাল দেওয়ার ব্যবস্থা করেন।

জঙ্গলমহলের মানুষ স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেলেন।

পাহাড়ের অশান্ত পরিবেশকে শান্ত করার জন্য আলাদা কমিটি গঠন করেন। পাহাড়ের উন্নয়নের জন্য আলাদা বরাদ্দ রেখেছেন বাজেটে। আবার তারা পৃথক রাজ্যের দাবি জানালে তাও কঠোর হাতে দমন করেছেন।

নবান্ন ও মহাকরণ থেকে জেলায় প্রশাসনিক মহল, সর্বত্র তিনি কর্মসংস্কৃতি ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছেন। যতই সমালোচনা হোক না কেন, তিনিই একমাত্র মুখ্যমন্ত্রী যিনি প্রত্যেক মাসে বিভিন্ন জেলা পরিদর্শন করে বিডিও, এসডিও, ডিএম, জেলা সভাধিপতিদের মুখোমুখি বসে সমস্যার কথা শোনেন এবং সমাধানের পথ বাতলে দেন। 

সম্প্রতি কল্যাণীতে প্রশাসনিক বৈঠকের সময় দেখেছি, এক খুদে শিশু, আড়াই বছরের কন্যা রাইসা নুরও বাবার কোল থেকেই দিদি, ওই তো দিদি, বলে ছুটে যেতে চাইছে দিদির কোলে। সকল শ্রেণীর মানুষের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জনপ্রিয়তা দিন দিন আকাশ স্পর্শ করছে যেন। জনসভার মাঠ জনপ্লাবনে ভরে উঠছে। দেশের কল্যাণে তিনি নিবেদিত প্রাণ হয়ে মানুষের নিকট দ্রুত পৌঁছে যাচ্ছেন।

রাজ্যের সাহিত্য-সংস্কৃতির ক্ষেত্রে অবদানের জন্য চালু করেছেন বঙ্গসম্মান।

কৃষকরা যাতে ন্যায্য মূল্য পান, তার জন্য তৎপর হয়েছেন।

স্বাস্থ্য পরিষেবা উন্নয়নের জন্য তিনি জেলায় জেলায় আরও হাসপাতাল নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। পিপিপি মডেল স্কুল-কলেজ এবং হাসপাতাল খোলার উদ্যোগ রাজ্যের প্রথম। 

সখ্যালঘু উন্নয়নের প্রশ্নে বামশাসকেরা ছিলেন নির্বিকার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিন্তু উদ্যোগী। সংরক্ষণের ক্ষেত্রে তিনি অনেক মুসলমান গোষ্ঠীকে ওবিসি-র অন্তর্ভুক্ত করেছেন। চাকরিক্ষেত্রে এবং উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে সংরক্ষণ ঘোষণা করেছেন। বিভিন্ন জায়গায় মসজিদ, কবরস্থান, ইদ্গাহ সংস্কারের জন্য ওয়াকফ বোর্ডকে সক্রিয় করে তুলেছেন। রাজ্যে হজ টাওয়ার ও হস্টেল নির্মাণ করেছেন। সংখ্যালঘু সংকটে তিনি গুরুত্ব সহকারে বোঝার চেষ্টা করেছেন। রাজ্যে এই প্রথমবার এত সংখ্যালঘু রাজনৈতিক নেতৃত্বের অধিকার অর্জন করেছেন।

পঞ্চায়েতে সংখ্যালঘুদের এত বড় সুযোগ অন্য সরকার দেয়নি।

ফলে সামগ্রিক বিচারে এই উন্নয়নকে সার্থক বলা যায় অনায়াসেই। যা চৌত্রিশ বছরে সম্ভব হয়নি, তা মাত্র কয়েক বছরে সম্ভব নয় কখনওই — এই বোধ আমাদের থাকা দরকার।

বিরোধীদের অনৈতিক জোট যে মানুষ বরদাস্ত করেনি, তার প্রমাণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুনরায় ক্ষমতায় প্রত্যাবর্তন। এবং ২০২১ সালে তিনি হ্যাট্রিক করেই সরকার গঠন করবেন।  

বাম সরকারের রাজত্বে সংখ্যালঘুদের হাতে না মেরে ভাতে মারা হয়েছিল। শিক্ষা, চাকরি, বাসস্থান — সবদিক থেকে তাদের বঞ্চিত করা হয়েছিল।

মমতা-সরকার এই বঞ্চনার অবসান ঘটিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে প্রকৃত উন্নয়ন কাকে বলে।

গত ২০১৬ বিধানসভা ভোটে সংখ্যালঘুদের বিপুল সমর্থন পেতে সিপিএম-কংগ্রেস-বিজিপি মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছিল। কারণ সংখ্যালঘুদের ভোট যাদের দিকে যাবে তারাই সরকার গড়বে। 

বিগত চৌত্রিশ বছরে সংখ্যালঘুদের চাকরি, শিক্ষা, বাসস্থান ও সামাজিক সংকটকে গুরুত্ব দিয়ে সমাধানের কোনও চেষ্টাই করেনি তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার। জ্যোতি বসু ও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের জামানায় সংখ্যালঘুদের সংকট বহুগুণ বেড়ে গিয়েছিল। জ্যোতি বসুর শাসনকালে মুসলিমদের জন্য চাকরি-বাকরির ক্ষেত্রে সংরক্ষণের দাবি তুলেছিলেন জনাব হাসানুজ্জামান। তাতে জ্যোতি বসু বলেন, ‘জনাব হাসানুজ্জামান কি মুসলমানদের জন্য কারাগারেও সংরক্ষণ চাইছেন।’

বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য তার জমানায় বলেছিলেন, ‘মাদ্রাসা-মক্তব হল সন্ত্রাসবাদ-এর আখড়া।’ এই চরম অপমানের বদলা বাংলার মানুষ ও সংখ্যালঘু সমাজ ভোটবাক্সে দিয়েছেন। 

মনে রাখতে হবে, সংখ্যাগরিষ্ঠের সাম্প্রদায়িকতা সংখ্যালঘিষ্ঠের সাম্প্রদায়িকতার চেয়ে বহুগুণে ধ্বংসাত্মক আর শক্তিশালী। সংখ্যাগরিষ্ঠের সাম্প্রদায়িকতাবাদী রাজনীতি মুসলমানদের অস্তিত্বকেই ধ্বংস করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে, জহরলাল নেহেরু একথা স্পষ্ট করে লিখেছিলেন। এর সত্যতা বারবারই প্রমাণিত হয়েছে।

সংখ্যালঘু প্রার্থীদের মধ্যে যারা লোকসভা ভোটে বা বিধানসভা ভোটে জিতেছে, ভাল কাজ করলেও তাদের অনেককেই প্রার্থী করা হয় না বা আসন বদল করা হয়।
কখনও-বা ঠেলে দেওয়া হয় হেরে যাওয়া আসনগুলিতে। মুসলিম প্রার্থীদের একে অপরের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয় সুচতুরভাবে। 

সাধারণ মানুষ কিন্তু রাজনীতির এসব প্যাঁচপয়জার বোঝে না। তারা চায় প্রত্যেক এলাকায় আধুনিক মানের স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে উঠুক। যেমন মুর্শিদাবাদ জেলায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার দাবী দীর্ঘদিন ধরে জানিয়ে আসছেন জেলার মানুষ, যা আজও বাস্তবায়িত হয়নি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় খানিকটা হলেও সে দিকে অগ্রসর হতে পেরেছেন। বিল পাশ করেছেন মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের। এছাড়াও তাঁর দলের মহাসচিব ও উচ্চ শিক্ষামন্ত্রী ড. পার্থ চট্টোপাধ্যায় শিক্ষা প্রসারে মহৎ উদ্যোগ নিয়েছেন। অনেকগুলি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় ও বেশ কয়েকটি নতুন কলেজ খুলেছেন রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। 

২০১৬ সালে বিধানসভা ভোটে সংখ্যালঘুদের বিপুল সমর্থন পেতে সিপিএম-কংগ্রেস-বিজেপি মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছিল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মানুষ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকেই প্রকৃত মর্যাদা পেয়েছেন।

সংখ্যালঘুদের বিপুল সমর্থন পেতে চাইবেন সব দলই, কারণ এই সংখ্যালঘুদের মন জয়ে সকল রাজনৈতিক দল নানা কৌশলে বাজিমাত করতে উঠেপড়ে লেগেছিল। 

বাম-কংগ্রেস ও বিজেপি, তৃণমূল কংগ্রেস-এর দিকে থাকা মুসলিম ভোটে থাবা বসাতে চাইছেন।

রাজ্যের মানুষের মুখে মুখে জোট নিয়ে জোর চর্চা চলছিল। বাম-কংগ্রেস নেতারা বারবার ছুটে যাচ্ছিলেন ফুরফুরাতে। কোন দল কতটা সমর্থন পাবে তা ভাবার বিষয় ছিল।

বাংলার সংখ্যালঘুরা বোকা নয়, তারা এখন বুঝতে পারেন। কে বা কারা রাজ্যের মানুষের ও সংখ্যালঘুদের প্রকৃত কল্যাণ চান। তাই তো তারা বারবার দিদির হাত শক্ত করছেন।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের জয় এসেছে মুসলিম প্রধান এলাকায় বেশি আসনে।

বিগত ৩৪ বছর বাংলার মানুষ দেখেছেন সংখ্যালঘুদের সামাজিক সংকটকে গুরুত্ব দিয়ে সমাধানের কোন চেষ্টাই করেনি তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার। রাজ্যের ২৩টা জেলায় বামফ্রন্টের পার্টি সম্পাদক আছেন, কিন্তু কোনও মুসলিমকে আজও সম্পাদক পদে বসাতে পারেননি বাম কর্তারা।

বামফ্রন্টের কর্তারা বলেন, তারা নাকি অন্যদের থেকে অসাম্প্রদায়িক।

পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান পদে কখনও মুসলিম আধিকারিককে বসাতে পারেননি কেন, এই প্রশ্ন ওঠা অমূলক নয়। এই কালো ইতিহাস বাংলার মানুষ এত তাড়াতাড়ি ভুলে যাবে না, এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বিগত বছরগুলোতে কয়েকজনকে জেলা পরিষদের সভাধিপতির আসনেও বসিয়েছেন। বাম সরকার যা কখনও ভাবতেই পারেনি। 

বামফ্রন্টের কর্তারা শুধু ভোটের সময় ভোট লুঠ করতে আর লেঠেল বাহিনী করে মুসলিমদের এবং দলিতদের এগিয়ে দিয়েছে সুচতুরভাবে।

মারছে মুসলিম, মরছে মুসলিম আর মরছে দলিতরা। বাংলার মানুষ ভুলে যায়নি তাদের চালাকি ও অত্যাচারের কথা। 

অপ্রত্যাশিত দেশভাগের ফলে সাবেক বাংলার সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান সমাজ পশ্চিমবাংলার সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীতে পরিণত হয়। মানসিক অস্বস্তিকাতরতায় আচ্ছন্ন মুসলমান জাতিসত্তা এই সাত দশকে কোন অবস্থানে?

স্বাধীনোত্তর পশ্চিমবাংলায় জীবন বিকাশের হরক্ষেত্রে বিশেষত রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের প্রশ্নে মুসলমানদের নানা মতে বিশ্বাসী বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের ‘গণতান্ত্রিক সাম্যতাহীন’ নির্লজ্জ স্বার্থসিদ্ধি আর নানাবিধ ধান্ধাবাজির সওয়ালে দাবার বড়ে হিসেবে ব্যবহার করেছে অর্থাৎ ‘ভোটব্যাঙ্ক’ হিসাবে ।

এই নিঃসহায় ধর্মীয় সম্প্রদায়কে মাদারি নাচের উপাদান করে তুলেছে। হরেক কিসিমের কারসাজির উৎসকেন্দ্রকে এক নির্মোহ দৃষ্টিতে দেখলে যা স্পষ্ট তা খোলসা করে বলা দরকার। সত্য নির্মম, সেক্ষেত্রে কাউকে রেয়াত করার প্রশ্নই ওঠে না। সে সুযোগও নেই, কেননা কঠোরভাবে একেশ্বরবাদী এই ধর্মবিশ্বাসী সমাজ ‘সিউডো সেক্যুলার’, নরম ও উগ্র সাম্প্রদায়িকতাবাদীদের সমস্ত রকমের ফন্দি আর ফিকির অনুধাবনের পূর্ণ ক্ষমতা অর্জন করেছে। 

দেশবিভাগের পর তারা অন্তবিহীন সমস্যায় আক্রান্ত, জর্জরিত এবং তারা রাজনৈতিক সমাধান কোন পদ্ধতিতে সম্ভব তার তত্ত্বগত, কৌশলগত আর পরিস্থিতি মোতাবেক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও পারঙ্গম হয়ে উঠেছে।

তার প্রমাণ তারা দিয়েছে বিগত দুই বিধানসভা ও ২০১৪ ও ২০১৯ লোকসভা ভোটে।

কোনও ‘ললিপপ’ আজ তাদের তৃপ্ত করার জন্য যথেষ্ট নয়। অতলান্তিক সমস্যা আর অস্তিত্বের সংকটগুলো অতিক্রম করে কিভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে থাকবে তার পূর্ণ একটি ছকও সংখ্যালঘু মনে ক্রিয়াশীল।

 ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের দিকে নজর দিলে দেখা যাচ্ছে ৩০ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আছে। তাই বিরোধীরা এই বাংলায় সুবিধাজনক অবস্থায় নেই। বিজেপি এনআরসি নিয়ে মাতামাতি করতেই হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষজন তাদের পাশ থেকে দূরে সরে এসেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একমাত্র নেত্রী এনআরসি নিয়ে তিনি বলে দিয়েছেন বাংলাতে হতে দেবেন না তিনি বেঁচে থাকতে।

বিগত বাম শাসনের অহমিকা, ঔদ্ধত্য, ভণ্ডামি আর দুর্নীতির গহ্বরে নিমজ্জিত তস্কর শাসকগোষ্ঠীর বলির পাঁঠা হতে মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষজন আর আগ্রহী নয়।

বাম জামানায় প্রশাসনিক বদমায়েশি সম্পর্কে নিরন্তর প্রতিবাদী হয়ে ওঠা সমাজ এখনও সচেতন আছেন। তারা ভুলে যায়নি জ্যোতি বসু ও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের জামানায় সংখ্যালঘুদের সংকট বহুগুণ বেড়ে গিয়েছিল। সর্বদিক থেকে তাদের হাতে না মেরে ভাতে মারার সেই সুকৌশল আজও ভোলার নয়। এই চরম অপমানের বদলা বাংলার মানুষ ও সংখ্যালঘু সমাজ ভোটবাক্সে দিয়েছেন। যার ফলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল বিধান চন্দ্র রায়ের পর একক সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন নিয়ে সকলকেই চমকে দিয়ে ২১১টা আসনে জয়ী হয়েছিল বিগত বিধানসভা নির্বাচনে। 

গোটা রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় মিটিং-মিছিল করে জোটের মুখে ঝামা ঘসে ও চুন-কালী মাখিয়ে তাদের পতন সুনিশ্চিত করেছিলেন বাংলার যুবরাজ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাধারণ মানুষ।

সামনের নির্বচনে সব দলগুলো সংখ্যা অনুপাতে ৩০ শতাংশ আসনে সংখ্যালঘু প্রার্থী দিক দাবী উঠছে।

যেসব ওয়াকফ সম্পত্তি বেদখল হয়ে আছে তা ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে বর্তমান সরকারকে আরও গুরুত্ব দিতে হবে।

সাধারণ মানুষ চান প্রত্যেক এলাকায় আধুনিক মানের সাধারণ স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে উঠুক।

রাজ্যের উচ্চশিক্ষায় অবশ্য স্বর্ণযুগ এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বেশ কয়েটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় ও অনেকগুলো কলেজ খুলেছেন রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়। তবে মহিলা কলেজ খুলতে হবে আরও অনেক এলাকায়।

উচ্চশিক্ষায় চাকরিতে মুসলমানদের অবস্থান নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে প্রতিনিয়ত অধ্যাপক, শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মচারীদের সংখ্যা ক্রমশ কমছেই, এর প্রতিকার হওয়া দরকার। উদাহরণ হিসেবে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কল্যাণী সহ অন্য অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মুসলমানদের অবস্থান নেই বললেই চলে। এই বঞ্চনার অবসান ঘটাতে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নিতে হবে।

রাজ্যের কল্যাণে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিকদের মধ্যে অন্যতম অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম, শুভেন্দু অধিকারী, সুব্রত বক্সীরা নিষ্ঠার সঙ্গে অফুরন্ত প্রাণশক্তি নিয়ে কাজ করছেন। আপদে-বিপদে রাজ্যের মানুষের পাশে সর্বদা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। এটাই আাশার আলো।

তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের জামানায় হাতে পায়ে ধরে কেউ কেউ সরকারি পদে বসেছেন। কেউ কেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যও হয়েছেন কিন্তু তাদের সরকার বিরোধী কার্যক্রম দেখে তাজ্জব বনে গেলাম। এইসব স্বার্থপরদের উপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে। এবং প্রশাসনিক পদ থেকে সরিয়ে দিতে হবে।

আজন্মকাল তৃণমূল কংগ্রেসের বিপক্ষে কাজ করেছেন। বিরুদ্ধে অন্তরালে উসকানি দিয়েছেন এমন পুলিশ কর্তাদের চিহ্নিত করতে হবে। তাদের কার্যক্রমের দিকে কড়া নজর রাখতে হবে। কেউ কেউ আইনকে ফাঁকি দিতে অন্যের নামে সিম নিয়ে হটস্ অ্যাপে কল করেন। নামে ও বেনামে বিভিন্ন জাগায় বার চালান এবং স্ত্রীর নামে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করছেন বলে যে অভিযোগ উঠছে তা গোয়েন্দা দিয়ে তদন্ত করতে হবে এবং পারলে ভিজলেন্স দিয়ে তদন্ত করে দোষ খুঁজে পাওয়া গেলে উপযুক্ত সাজা দিতে হবে।

এদিকে নগর উন্নয়নে ও কলকাতার মেয়র হিসেবে ফিরহাদ হাকিম-এর বিভিন্ন শুভ উদ্যোগ প্রাণিত করেছে বাংলার মানুষকে।

আশার কথা, মানবীয় চিন্তাচর্চায় যথার্থ আগ্রহী সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের মেধাজীবী, সাহিত্যিক, শিল্পী, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক, সমাজ-রাষ্ট্রচিন্তক, সর্বোপরি আম-জনতার মধ্যে থেকে সচেতন অংশটি বাম শাসনের প্রশাসনিক বদমায়েশি সম্পর্কে নিরন্তন প্রতিবাদী হয়ে উঠেছিল। সংখ্যাগুরু ও সংখ্যালঘিষ্ঠ সমাজ থেকে উদ্ভূত প্রতিনিধিস্থানীয় সমাজ-বেত্তা, প্রাবন্ধিকদের ভাবনাচিন্তাকেও তুলে ধরেছিলাম আমার  সম্পাদনায় প্রকাশিত প্রবন্ধ সংকলন ‘কংগ্রেস ও বাম শাসনে মুসলিম ভোট ব্যাঙ্ক’ গ্রন্থে। এই গ্রন্থ পড়লে অনেক অজানা তথ্য জানা যায়।

সংখ্যাগরিষ্ঠ সমাজের একটি অংশ, যারা আজও উটপাখির মতো মরুবালিতে মুখ গুঁজে উপেক্ষিত অংশের জাগরণকে স্বীকার করতে দ্বিধান্বিত, তাদের বোধদয় হবে এমন প্রত্যাশা করা যায়। যার ফলে বাম শাসনের অবসান ঘটাতে আমরাও এগিয়ে এসেছিলাম। পরন্তু সীমাহীন রাজকীয় ক্ষমতানির্ভর সুখে-স্বাচ্ছন্দ্যে ঘাড়ে-গর্দানে এক হয়ে যাওয়া বামফ্রন্টের রাজাবাবুরা এতদিনে যে সংখ্যালঘিষ্ঠ সমাজাংশের উপস্থিতিকেই স্বীকার করতো না, আজ তারাই বেমক্কা নির্লজ্জভাবে ছুটে যাচ্ছেন সংখ্যালঘুদের কাছে।

সংখ্যালঘুরা চান সমদৃষ্টি সমাজবিকাশ। তারা সময়ের বিচার করেছেন এবং বিপুলভাবে জয় দিয়ে ফিরিয়ে এনেছেন মমতা সরকারকে। আগামীতেও আনবেন।

বাংলার অনেকেই মনে করছেন এবার ২০২১ সালে ২৯৪-এর মধ্যে ২৩৪ না হলেও অধিকাংশ আসনেই জয় আসবে তৃণমূল কংগ্রেস দলের। সামনের বিধানসভার নির্বাচনে অনেক এগিয়ে আছে তৃণমূল কংগ্রেস।

মুর্শিদাবাদ ও মালদা জেলায় কংগ্রেস-এর জেতা আসন এবার লড়াই দিয়ে ছিনিয়ে নেবে তৃণমূল কংগ্রেস। 

রাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেখিয়ে দিলেন বৈষম্য না করে উন্নয়ন করা যায়। তাই উন্নত, ঐক্যবদ্ধ, ধর্মনিরপেক্ষ এবং প্রগতিশীল ভারত গড়ার লক্ষ্যে বাংলার ৪২টা লোকসভা কেন্দ্রে প্রকাশ্য জনসভা করছেন বাংলার নয়নের মণি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচনী ভোট প্রচারে তাঁর জনসভা গুলো জনসমুদ্রের আকার নিয়ে ছিল। কিন্তু মানুষ যে ভুল বোঝাবুঝির ফলে বিজেপিকে ভোট দিয়ে কি পাপ করেছিল তা এখন হাড়ে হাড়ে বুঝতে পারছেন।

গণতন্ত্র ও সংবিধান আজ বহু রাজনৈতিক নেতাদের হাতে ধ্বংস হচ্ছে। গণতন্ত্র ও সংবিধান বাঁচাতে দেশের সাধারণ নাগরিকদের আরও সচেতন হয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে হবে। ইভিএম কারচুপি রুখে স্বচ্ছ সরকার উপহার দিতে জনসাধারণকে আরও সচেতন হতে হবে।
দেশের সুনাগরিকগণ আগামীতে ভালবাসার দেশকে রক্ষা করতে সঠিক পদক্ষেপ নেবেন এই আশায় আমারা।