সত্যমেব জয়তে – বিজেপি কে শ্যাম থাপার বাইসাইকেল কিক দিলো মেহেতাব হোসেন – উন্নয়নের ঠেলা ?

0
214
Mehtab and BJP
Mehtab and BJP

সত্যমেব জয়তে – বিজেপি কে শ্যাম থাপার বাইসাইকেল কিক দিলো মেহেতাব হোসেন – উন্নয়নের ঠেলা ?

“কতই রঙ্গ দেখি দুনিয়ায় , দেখে অবাক বোনে যাই”

“মেহেতাব হোসেন বিজেপিতে যোগ দিলেন – সংখ্যালঘু ব্র্যান্ডিং ও এবার রাজ্য বিজেপিতে” এই শিরোনামে একটা খবর করলে কেমন হয় ভাবছি , এমন সময় ইন্দ্রজিৎ ফোন করলো , “সুমন দা মেহেতাব রাজনৈতিক সন্যাস নিলো” এক নিস্বাসে বলে থামলো ।

কিংকর্তব্যবিমূড় এর চলতি বাংলা কি , আবুল বাশার ভাই ঢাকায় থাকতে বলেছিলেন “স্যার এর মানে চোদনা হয়ে যাওয়া” ভাষাটা বড় মেঠো হয়ে গেলো , কিন্তু কিছু মনে করবেন না । আমি সেই ভাষাতেই খবর করি যা আপনার বেডরুমের ভাষা ৮-৮০ ঘোমটার নিচে নাচতে নাচতে বলে।

আসুন বিষয় নিয়ে আমার চিন্তাটা শেয়ার করে দেখি , আপনাদের কি মনে হয় । দিলীপদা ও দিদি মনি পড়বেন এবং বাংলার প্রকৃত উন্নয়নের জন্য ভাববেন জনগণ যাকেই আশীর্বাদ করুন , বিষয় কিন্তু একই থাকবে ।

১. বিজেপি পাকা গুঁটি কাঁচাতে ব্যাস্ত সর্বদা এই লোকে ভাবছে । শোভন ,দেবশ্রী, মেহতাব হোম ওয়ার্ক না করেই সিলেকশন । দেখ কেমন লাগে , কেমন দিলাম দেখোন দাড়িতে পড়ে, বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব প্লেয়িং ফর দ্যা গ্যালারি করতে গিয়ে মুখ পোড়ালেন ? নাকি দিদির সুপার গ্রাউন্ড ম্যানেজমেন্ট বিচার করবেন’ সুধী পাঠক ।

২. পেশী শক্তির কাছে ও ব্ল্যাক মেইল এর কাছে হার মানতে বাধ্য হচ্ছে নতুনরা । ভয় কি তবে কালীঘাটের মায়ের না দিদির ? গণতন্ত্রের পক্ষে খুবই ভালো প্রচেষ্টা , আমরা সবাই রাজা আমাদেরই রানীর রাজত্বে । শোভন ,দেবশ্রী, মেহতাবরা কি ভয় পেলেন ? দুর্জনেরা তাই বলছেন কিন্তু ।

৩. বলিউডের সুশান্ত সিংহের মতো নতুন কুড়িরা বাংলাতেও নেপোটিসিমের শিকার । ফিরহাদের সংখ্যালঘু একছত্র ছবি ঠিক রাখার জন্য বিশেষ ভালোবাসায় মেহতাব বনবাসের পথ বেছে নিলেন কি ? তাঁর মতো লড়াকু খেলোয়াড় মাঠ ছেড়ে পালাবেন সেটা কি এতই সহজ ? নাকি এ অন্য মাঠ আর খেলার নিয়ম ও অজানা ।

৪. পঞ্চায়েত ভোটের পরিবেশ কি বিধানসভায় তৈরী হচ্ছে ? সুস্থ গণতন্ত্র কি সেটাই, যেখানে কম করে কয়েক হাজার মায়ের কোল খালি হবে , সাদা শাড়ীতে বা পাঞ্জাবিতে রক্তের বুটিক কাজ দেখা যাবে ? ডিমভাত বা চায়ে পে চর্চা সাথে কিছু হাঁড় হিম করা দৃষ্টি চিনে নেবে আগামী কামদুনি বা চোপড়া কে । ধর্ষণ সেটা তো দেহের স্বাভাবিক সর্দি কাশির মতো বা উচিত শিক্ষা ইটের বদলে পাটকেল ? মায়েদের অসম্মান করলে তবেই না বীর বাহিনী কিছু কাজের কাজ ছোট করে করলো । হায়রে মাতৃ জাতি তোদের গর্ভেই জন্ম মোর আর তোদেরি রোজ লাঞ্চিত হতে দেখি , এই ছেলের এই অক্ষমতা ম্যাপ কর মায়েরা ।

মেহেতাবের ব্যাককিক কিন্তু অশনি সংকেত রাজনীতি আর সুবিধা ভোগীদেরও জায়গা নয়, শুধুই পেশী শক্তির আস্ফালনে স্থির হবে “বঙ্গে কন বানেগা মুখ্যমন্ত্রী” ।

সাংবাদিকদের ডিপ্লোমেটিক ইমিউনিটি প্রয়োজন পেশার ক্ষেত্রে না হলে , শেষ কণ্ঠস্বর ও দমিত হবে ।

বিজেপি না টিএমসি তামাশা চলবে ২১ শের মে পর্যন্ত্য, কিন্তু নিশ্চিত রক্ত ঝড়বে আগে ,পরে , বহুদিন ।

গণতন্ত্র কে হত্যা করে , ফ্রী আফিঙের নেশায় মন মজাতে ব্যাস্ত উভয় পক্ষ। কিন্তু ইতিহাসে কি তাতে ঝাঁসির রানীর সম্মান বা পৃত্থিরাজের সংযুক্তা লাভের গল্প বলা যাবে বর্তমান সময় কে নিয়ে| ভবিষ্যতে নাকি পাল বংশের প্রতিষ্ঠাতা গোপালের মতো নতুন কাউকে পাবে বাংলা ?

বাংলার জিডিপি কত ভালো এ সম্পর্কে “গঙ্গারাম কে পাত্র পেলে জানতে চাও সে কেমন ছেলের মতো হয়ে যাবে” দিদি আপনার প্রচেষ্টা কে ছোট না করেও বলছি , ১৭৫৭ পলাশীর ময়দান , ১৮৫৭ সিপাহী স্বাধীনতার লড়াই ,১৯৪৭ স্বাধীনতা , ১৯৬২ ড: বিধান রায়ের প্রয়াণ , ১৯৭৭ বাম যুগের শুরু ,২০১১ আপনার অধিষ্ঠান বঙ্গের মসনদে; এই সকল সময়ে বাংলার সারা বিশ্বে অবদান আর ২০২০ তে বাংলা কোথায় ?

আপনার তথ্য আর তত্ব বাদ দিয়ে কিছু প্রশ্নের জবাব দিন ধরুন আপনি ১৯৮০ বা ২০০৬ য়ে আছেন আর সময়টা ঠিক আজকের মতো , নিচের প্রশ্ন গুলো করবেন কিনা ?

১. কেন বিধান রায় বা NRS এর মতো মেধাবী ডাক্তার তৈরী হয় না , কেন বিজন বসের মতো সৎ ইঞ্জিনিয়ার তৈরী আর বাংলায় হয় না ?আইআইটি বা আই এস এই ইত্যাদি বাদে অনন্যাও সরকারি ও প্রাইভেট কলেজ দেখুন। কেন চিকিৎসার জন্য ভেলোর বা দিল্লি যাবো ? কেন ব্রিজ তৈরির আগে ভেঙে পরে, কিন্তু এই দেশেই কাশ্মীরে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্রিজ হয় , বাঙালির আর তার অতীত গৌরবের কোনো ছোঁয়া ছাড়া ।

একজন দুজন বিক্ষিপ্ত সফল কে না ধরে, বলা যায় সামগ্রিক উন্নয়নের করুন ছবি আর জন্য আপনি একা কোনো ভাবেই দায়ী নন । এটা বলতে হবে না , বাস্তবিক ই বাংলার পতন নকশাল আন্দোলনের ব্যর্থ চেষ্টার সময় থেকে শুরু । ইন্ডাস্ট্রী তাড়ানোর দায় আপনার নামে যারা দেবে, তারা এক সিঙ্গুরকে আর নন্দীগ্রামকে দেখাবে , কিন্তু আগের জামানা যে , হাওড়া ,দমদম ,কল্যাণী , দুর্গাপুর কে জনগণতান্ত্রিক আন্দোলনের চিতায় তুলে দিলেন সেটাও ভুললে চলবে না ।

ব্যক্তিগত ভাবে আমি পৃথিবীর চারটি মহাদেশের ৪৮ টা দেশের অত্যাধুনিক রিসার্চ ল্যাবরেটরির মান উন্নয়ন ও তথ্য প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করেছি , ওষুধ আবিষ্কারের সকল গবেষণাগারই কিছু না কিছু ধুলো মেখেছি গায়ে । তাই দুঃখের সাথে বলছি হয় জেনে বুঝে মানুষ কে ভুল বোঝাচ্ছেন বা আপনার (সকল রাজনৈতিক দাদা দিদিরা) এক্সপার্টরা ইয়েস ম্যাডাম হয়ে নিজেদের কাজ করছেন ।

এতে আর যাই হোক শিক্ষা ক্ষেত্রে নবজাগরণ আসবে না । আজকের মা ও বাবারা কি খুশী ছেলে মেয়ে ১০০ তে ১০০ পরীক্ষা না দিয়ে । তারা ছেলে ইঞ্জিনিয়ার এতেই আনন্দিত, সে ইঞ্জিনিয়ার পাখা উল্টো ঘুরিয়ে দিলেও সোনার টুকরো , গলায় টেথিসকোপ ঝুলিয়ে নিলেই যদি ডাক্তার হতো ,তবে আর ক্লিনিকাল আই আর মেডিক্যাল অব্জারভেশন উইথ ডাইনোস্টিক এনালাইসিস দরকার হতো না । ১০০ এর জায়গায় ১০০০ রুগী রোজ দেখেন প্রফেসররা| কি দেখবেন, কি শেখাবেন !! আল্লাহ ভরসা সিস্টেম । এক দিনে ১০-১৫ জনের বেশি রুগী নয়, এক একজন প্রফেসর ১০ জনের বেশি নতুন ডাক্তারদের অ্যাটাচ করবেন না ।

উন্নত মানের টেস্ট ল্যাব ,মাইক্রো বায়োলজি থেকে ভাইরোলজি ,জেনেটিক্স থেকে মলিকুলার বায়োলজি সকল সেকশনে সেরা ইনস্ট্রুমেন্ট ও টেকনিশিয়ান বসান ।

নীল সাদা সুপার স্পেশালিটি রং নয় , সত্যি করে নীল রতন সরকার , বিধান রায় , নিহার মুন্সী , আর জি কর দের নিয়ে আসুন অনুগত সেন বা অনুপ্রাণিত মাঝি , এ গঙ্গা পার করতে পারবেন না । আবার সেই সোনার দিন ফেরত আনুন বাংলার মেডিকেল শিক্ষায় । ভেলোর থেকে ট্রেন করে যেদিন রুগী আসবে (মুরগি নয়) সেদিন হবে এগিয়ে বাংলা

২. কেন প্রাথমিক থেকে উচ্ছ শিক্ষায় টাকা নিয়ে বা অযোগ্য স্বজন কে শিক্ষক করা হচ্ছে (প্রমান করার জন্য স্টিং অপারেশন করতে হবে না । সাহস থাকলে যে কোনো শিক্ষক যারা ২০০০ থেকে ২০২০ মধ্যে ঢুকেছেন আবার পরীক্ষা নিন আর দেখুন কজন সার্টিফিকেট ছাড়া গ্রাজুয়েট । ঠগ বাঁচতে গাঁ উজাড় হয়ে যাবে ।

৩ স্টেরিও টাইপ সিলেবাস যা অক্সফোর্ড বা হার্ভার্ড বা এমআইটির ধারে পাশে আসেনা । সস্তার যন্ত্রপাতি আর লোক দেখানো ল্যাবরেটরি আর যাই হোক জগদীশ বোস ,মেঘনাথ সাহা বা সত্যেন বোস দিতে পারবে না ।

ইন্ডাস্ট্রি না থাকলে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং হয় না । ইন্ডাস্ট্রি কিন্তু লেদ মেশিন বা অটোম্যাশন দিয়ে হয় ,হোম ডেলিভারি আপস বা চপ দিয়ে নয় । ভাবের ঘরে চুরি আর বামপন্থী জঙ্গি আন্দোলন অনেক হলো, এবার কিছু কাজের কাজ হোক । কুমিরের মতো সেক্টর ফাইভ আর রাজার হাট দেখিয়ে লাভ নেই ,সে অন্য গল্প ।

কেন করোনার ভাইরাস রিসার্চ ট্রায়াল ট্রপিকাল মেডিসিন করা যায় না ? কেন নেই আধুনিক জেনেটিক ল্যাব । যে পরিষেবার জন্য আমাদের ভিন রাজ্যে যেতে হয় সেটাই স্কোপ ফর ডেভেলপমেন্ট ।

৪. মেডিকেল সিস্টেমে যে নিম্ন মানের সাপ্লাই আসে, তাতে রোগীর থেকে হাসপাতালটার চিকিৎসা আগে দরকার ।

৫. ফ্রি রেশন এই প্রহসন ভারত জুড়েই বন্ধ করা দরকার । কাজের বদলে খাদ্য দিন , লোক কে অকর্মন্য হারাম খোর করে তুলবেন না সকলে মিলে ।

৬. যে রাজনৈতিক বিষাক্ত পরিবেশ তৈরী হয়েছে তাতে মেহেতাবের ব্যাক কিক, শুধু সময়ের অপেক্ষা ছিল, আর এই বেনো জল নিয়ে যদি বিজেপি আপনার ঘর ভাঙিয়ে নিজের বাগান সাজায় জানবেন , আপনার থেকেও বড় ভুল তারা করবে। কারণ আপনার তো তাও বিরোধী আছে । তারা এই চোরদের নিয়ে ঘর সাজালে সরকার বিরোধী এক সাথে চুরি করবে ।

যাকে বলে আয় ভাই লুটে পুটে নয় পুঁতে খাই । আনন্দ মঠ লেখার ক্ষমতা বা প্রতিভা কোনোদিনই আমার হবে না, তবে বন্দেমাতরম অন্তর থেকেই বলি ও বলবো ।

আপনিই অগ্নিকন্যা , আপনিই এখনো বেস্ট পাবলিক ফেস ফর পলিটিকাল ফাতেরনিটি অফ বেঙ্গল ।

লেগে পড়ুন দু পক্ষই করেঙ্গে ইয়া মরেঙ্গে স্টাইলে, তবে পদ্ধতি টা পিকের বা দিল্লির নয়, আমার কথা একবার শুনুন ।

১. এমন কিছু পরিকল্পনা করুন ফ্রি চাল ডাল নয় , ফ্যাক্টরি আর জিডিপি বাড়ে এমন কিছু উদ্যোগ করুন দুজনেই ।

২. আইআইটি বা আইআইএম থেকে ভালো প্রতিষ্ঠানের শুরু করুন| দেশ বিদেশের গুণী মানুষ কে শিক্ষক নিয়োগ করুন | আপনাদের মতে অনুপ্রাণিত না হলেও চলবে, যদি ছাত্র দরদী পন্ডিত হয় ।

৩. প্রকৃত কিংস কলেজ লন্ডন বা এমআইটির মতো ডাক্তারি, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে হোক ।

৪. মিডিয়া ম্যানেজ করে লোক জেতা যাবে না আর , লং টার্ম ভালো কাজ করুন, যদি থেকে যান সোনার বাংলায় আপনিই রানী আর চলে যান , তবে বিধান বাবুর মতো লোকে কিছু সোনার প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা বলে মনে রাখবেন । তবে আপনার বর্তমান দেশি বিদেশী ধান্দাবাজ ভাইদের দিয়ে হবে না , এরা দিন বদলের পাখি অন্য ডালে বসে যাবে সহজেই ।

আর দিলীপদা দিদির প্লানের থেকে বেটার প্ল্যান দিয়ে মন জিতুন, ইটের বদলে পাটকেল তো আছেই , পারলে ভারতরত্নের পাল্টা নোবেল দিন । তারপর দেখুন এই পোড়া দেশ আপনাদের রামের নয় আম জনতার দয়া ই ক্ষমতা দেবে ।

দিদি বা দাদারা কেস দেবেন না প্লিজ , কারণ দিদি আপনার রাইটার্সের প্রবেশের ছবি তুলবো বলে ৭ ঘন্টা রোদে দাঁড়িয়ে ছিলাম ২০১১ তে । আজ যদি আফশোস করি সেটা কেন কি কারণে একবার ভেবে দেখবেন ?, যারা লড়েছিল একসাথে আজ কেন নেই পাশে বা অকালেই মুকুল ঝরে যায় কেন ?

আচ্ছা দিন অনেক হলো , আচ্ছা বাংলা চাই স্যার , প্রতিষ্ঠাতা শ্যামা প্রসাদ, চিত্তরঞ্জন থেকে ইস্কো অনেক কিছুর পেছনেই অবদান রেখেছিলেন , আসুন , অল্টারনেট প্ল্যান দিন ,প্রতিযোগিতা হোক প্রকৃত মনস্তাত্ত্বিক ।

এই বাংলায় ফ্রি দিলে মানুষ বিষ আর বিষ্ঠা দুটোই দুবার খায় আত্ম বিস্মৃত জাতি ক্ষমা করে দিন সকলে । অনেক দিন আসল উন্নয়ন দেখেনি ,সরকারি চাকরি কেই উন্নয়নের পরাকাষ্ঠা মনে করে ।

চাঁদের পাহাড়ের শঙ্কর নয় , সেক্টর ফাইভের সেজো বাবু অনেক বেশি কাম্য । সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার আর সাইবার কুলি এর মধ্যে কি তফাৎ তাই বোঝেনা । ফোড়নের কাজ নিয়ে বিদেশ গেলে মায়ের কি আনন্দ , ছেলে আমার বিলেত ফেরত । বিশ্বাস করুন বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অন সাইট মানেই কিন্তু বড় কোনো কাজ নয় । কিন্তু গ্ল্যামার অনেক বেশি সাথে সুগার প্রেসার ফ্রি ।

আসুন নতুন বাংলা গড়ি , কে সরকার,কে বিরোধী পরে হবে , বাংলা কে আবার ভারতের মুকুট করতে হবে ।