সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর যেকোন আক্রমণ জাতীয় স্বার্থের জন্য ক্ষতিকারক : উপরাষ্ট্রপতি

0
245
News-media-standards
News-media-standards

সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর যেকোন আক্রমণ জাতীয় স্বার্থের জন্য ক্ষতিকারক : উপরাষ্ট্রপতি

By PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ১৬ নভেম্বর, ২০২০     

উপরাষ্ট্রপতি শ্রী এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু বলেছেন, সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর যেকোন ধরণের আক্রমণ জাতীয় স্বার্থের জন্য ক্ষতিকারক। সকলেরই এর বিরোধীতা করা উচিত।     

জাতীয় প্রেস দিবস উপলক্ষ্যে আজ প্রেস কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া আয়োজিত ‘কোভিড-১৯ মহামারীতে গণ-মাধ্যমের ভূমিকা এবং গণ-মাধ্যমের ওপর তার প্রভাব’ শীর্ষক এক আলোচনায় রেকর্ড করা এক ভিডিও বার্তায় একথা জানান তিনি। উপরাষ্ট্রপতি বলেন, নির্ভিক এবং মুক্ত সংবাদ মাধ্যম ছাড়া গণতন্ত্র কখনই বেঁচে থাকতে পারেনা।    

তিনি বলেন, ভারতে সংবাদ মাধ্যম বরাবরই গণতন্ত্রের ভিত মজবুত এবং রক্ষা করেছে। শ্রী নাইডু বলেন, একটি শক্তিশালী, অবাধ এবং প্রাণবন্ত সংবাদ মাধ্যম দৃঢ় গণতন্ত্রে স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার মতো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠাকে মজবুত করে।     

সাংবাদিকতাকে একটি পবিত্র কাজ হিসেবে বর্ণনা করে তিনি সাধারণ মানুষের ক্ষমতায়ণে এবং জাতীয় স্বার্থকে পরিপূর্ণ করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের অসামান্য ভূমিকা পালনের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন।    

একইসঙ্গে শ্রী নাইডু সংবাদ মাধ্যমকে তার প্রতিবেদনে সুষ্ঠু, উদ্দেশ্যমূলক এবং নির্ভুল সংবাদ পরিবেশনের পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, সংবাদ পরিবেশনে সংবেদনশীলতার বিষয়টি এড়ানো উচিত। খবরের সঙ্গে দৃষ্টিভঙ্গী মিশ্রণের প্রবণতা রোধ করা দরকার। তিনি আরও জানান, সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের খবর আরও বৃহত্তর আকারে স্থান পাওয়া দরকার।     

খবরের কাগজ ও বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যমের সাংবাদিকরা  যে ভাবে  কোভিড-১৯ মহামারীর পরিপ্রেক্ষিতে সামনের সারির যোদ্ধা হিসেবে উঠে এসে  মহামারী পরিস্থিতির সঙ্গে জড়িত ঝুঁকিপূর্ণ খবর সংগ্রহের জন্য  নিরন্তর প্রয়াস, কর্মকান্ড চালিয়ে গেছেন  তার জন্য  প্রশংসা জানান উপরাষ্ট্রপতি।     

তিনি  বলেন, ‘আমি প্রতিটি সাংবাদিক, ক্যামেরাম্যান এবং অন্যান্য সহকর্মীদের প্রতি আমার গভীর প্রশংসা জানাচ্ছি। তাঁরা সংবাদ সংগ্রহ এবং পরিবেশনের জন্য নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।’    

উপরাষ্ট্রপতি বলেন, এই মহামারী রোগ নিয়ে যখন একাধিক ভুয়ো খবর ছড়িয়ে পরতে দেখা গেছে তখন সঠিক সময় সঠিক তথ্য পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব সংবাদ মাধ্যমের কর্মীদের । এক্ষেত্রে তাঁরা  সেই কাজই করেছেন বলে তিনি জানান।     

বিভিন্ন দাবিদাওয়া ও অসামাপ্ত কাজ সম্পূর্ণ করার বিষয়ে মানুষের অভাব  অভিযোগ ইত্যাদি বিষয় উল্লেখ করতে গিয়ে উপরাষ্ট্রপতি বলেন, সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষিত করে তোলার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের বড় ভূমিকা রয়েছে।     কোভিড-১৯ সংক্রমণে যেসমস্ত সাংবাদিক মারা গেছেন তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ব্যাক্ত করেছেন উপরাষ্ট্রপতি।   

সংবাদ মাধ্যম জগতে কোভিড-১৯ সংকটের বিরুপ প্রভাবের কথা উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, বেশকিছু সংবাদ পত্রের প্রকাশনা হ্রাস করতে হয়েছে। এমনকি কোন কোন সংবাদ মাধ্যমকে ডিজিটালের দিকে যেতে হয়েছে। খবরের কাগজ এবং বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যমের অনেক কর্মচারী কাজ হারিয়েছেন,  যা এক দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা।    

এই কঠিন সময়ে সাংবাদিকদের অভুক্ত রাখা উচিত নয় বলে উল্লেখ করে উপরাষ্ট্রপতি সকল পক্ষকে একত্রিত হয়ে করোনা সংক্রমণের জেরে সৃষ্ট অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সমাধানের পথ সন্ধানের আহ্বান জানান।    

মহামারী পরিস্থিতির উপর লক্ষ্য রেখে সংবাদ মাধ্যমের প্রতিষ্ঠানগুলিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি। শ্রী নাইডু বলেন, সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা প্রয়োজনে যাতে আরও বেশি সংখ্যায় ঘরে বসে কাজ করতে পারেন তার ব্যবস্থা করা উচিত। সর্বশেষ তথ্যের জন্য সংবাদ মাধ্যম এবং বিনোদন শিল্পের সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের নিরবচ্ছিন্ন সামাজিক যোগাযোগ গড়ে তোলার পরামর্শ দেন।     

রামায়ন এবং মহাভারতের অনুষ্ঠান গুলি পুনরায় প্রচারের বিপুল জনপ্রিয়তার কথা উল্লেখ করে উপরাষ্ট্রপতি গণমাধ্যম জগতে ক্রমবর্ধমান দর্শকের ঘাটতি দূর করতে এবং আর্থিক উন্নতিতে বিকল্প পথ অনুসন্ধানের পরামর্শ দেন।