পিএম-স্বনিধি কর্মসুচির আওতায় ২৫ লক্ষের বেশি আবেদনপত্র পাওয়া গেছে

0
263
US Dollar
US Dollar

পিএম-স্বনিধি কর্মসুচির আওতায় ২৫ লক্ষের বেশি আবেদনপত্র পাওয়া গেছে

এখনও পর্যন্ত ১২ লক্ষের বেশি আবেদনপত্র মঞ্জুর

By PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৮ নভেম্বর, ২০২০

‘প্রধানমন্ত্রী রাস্তার হকার আত্মনির্ভর নিধি’ বা পিএম-স্বনিধি কর্মসূচির আওতায় ২৫ লক্ষের বেশি আবেদনপত্র জমা পড়েছে। এর মধ্যে ১২ লক্ষের বেশি আবেদনপত্র মঞ্জুর করা হয়েছে এবং প্রায় ৫ লক্ষ ৩৫ হাজার আবেদনের ক্ষেত্রে ঋণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। উত্তরপ্রদেশে এই কর্মসূচির আওতায় ৬ লক্ষ ৫০ হাজারের বেশি আবেদনপত্র পাওয়া গেছে। প্রাপ্ত আবেদনপত্রগুলির মধ্যে প্রায় ৩ লক্ষ ২৭ হাজার আবেদন মঞ্জুর হয়েছে এবং ১ লক্ষ ৮৭ হাজার আবেদনের ক্ষেত্রে ঋণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, উত্তরপ্রদেশে পিএম-স্বনিধি কর্মসূচির আওতায় ঋণ চুক্তির ক্ষেত্রে স্ট্যাম্প ডিউটি প্রত্যাহার করা হয়েছে। 

কোভিড-১৯ লকডাউনের সময় যে সমস্ত হকার নিজেদের এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছিলেন, তাঁরা সকলেই পুনরায় নিজেদের এলাকায় ফিরে এলে এই কর্মসূচির আওতায় ঋণ পেতে পারেন। যে কোনও রাস্তার হকার অনলাইনে আবেদনপত্র আপলোড করে অথবা যে কোনও অভিন্ন পরিষেবা কেন্দ্র বা পুর অফিসে গিয়ে কিংবা ব্যাঙ্কের যে কোনও শাখায় গিয়ে অনলাইন আবেদনপত্র জমা করতে পারেন। ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকেও ঋণ সহায়তার জন্য রাস্তার হকারদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা চলছে যাতে তাঁরা পুনরায় ব্যবসা শুরু করতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী এই কাজে ব্যাঙ্ক কর্মীদের কঠোর পরিশ্রমের প্রশংসা করে বলেছেন, “একটা সময় ছিল যখন রাস্তার হকাররা ব্যাঙ্কের ভেতরে যেতে পারতেন না। কিন্তু আজ ব্যাঙ্কই তাঁদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে।” 

স্বচ্ছতা, দায়বদ্ধতা ও ধারাবাহিকতা বজায় রেখে পিএম-স্বনিধি কর্মসূচির দ্রুত রূপায়ণ সুনিশ্চিত করতে একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম সহ ওয়েব পোর্টাল / মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে কর্মসূচির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সমস্ত বিষয়ের ওপর নজর রাখা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় আবাসন ও শহরাঞ্চল বিষয়ক মন্ত্রকের সচিব শ্রী দুর্গাশঙ্কর মিশ্র ট্যুইটে বলেছেন, আত্মনির্ভর ভারতের উদ্দেশ্য পূরণে সংশ্লিষ্ট সকলকে সামিল করে কর্মসূচির সুষ্ঠু ও সফল রূপায়ণে মন্ত্রক নিরন্তর কাজ করে চলেছে। 

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা কোভিড-১৯ মহামারীজনিত লকডাউনের সময় বিশেষ সংযমের পরিচয় দিয়েছেন। এই প্রেক্ষিতে সরকার তাঁদেরকে সবরকম সহায়তা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে যাতে তাঁরা পুনরায় ব্যবসা-বাণিজ্য শুরু করে সহজে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতে পারেন। অধিকাংশ রাস্তার হকার, যাঁদের ইতিমধ্যেই স্বনিধি কর্মসূচির আওতায় ঋণ সহায়তা দেওয়া হয়েছিল, তাঁরা ইতিমধ্যেই ঋণ পরিশোধ শুরু করেছেন। এ প্রসঙ্গে আবাসন ও শহরাঞ্চল বিষয়ক মন্ত্রী শ্রী হরদীপ সিং পুরী পিএম-স্বনিধি কর্মসূচি রূপায়ণে অগ্রগতি পর্যালোচনার সময় এক ট্যুইটে বলেছেন, আত্মনির্ভর ভারত গঠনের লক্ষ্যে এটি একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ যেখানে দেশের অগ্রগতিতে প্রত্যেক ভারতীয়ই অংশীদার। 

পিএম-স্বনিধি কর্মসূচির রূপায়ণে শহরাঞ্চলীয় স্থানীয় কর্তৃপক্ষগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এই কর্তৃপক্ষগুলি রাস্তার হকারদের যে সমস্ত সংগঠন রয়েছে সেগুলির সঙ্গে নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করছে যাতে প্রত্যেক যোগ্য রাস্তার হকারকে সময়সীমার মধ্যে ঋণ সহায়তা পৌঁছে দিয়ে তাঁদের ব্যবসা-বাণিজ্য পুনরায় শুরু করতে সাহায্য করা যায়।