ব্রুনোই এর বাংলাদেশ হাই কমিশন দ্বারা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস স্বসম্মানে আয়োজিত হলো।

0
114
ব্রুনোই এর বাংলাদেশ হাই কমিশন দ্বারা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস স্বসম্মানে আয়োজিত হলো।
ব্রুনোই এর বাংলাদেশ হাই কমিশন দ্বারা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস স্বসম্মানে আয়োজিত হলো।

ব্রুনাইস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে হাই কমিশন চত্ত্বরে এবং বন্দর সেরি বেগাওয়ানের মুলিয়া হোটেলে দুটি পৃথক অনুষ্ঠান আয়োজন করে। একুশের সকালে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণের পর মান্যবর হাই কমিশনার নাহিদা রহমান সুমনা হাই কমিশন চত্ত্বরে নবপ্রতিষ্ঠত শহীদ মিনারটি মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পক্ষে উদ্বোধন করেন। অতঃপর  ব্রুনাই প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটিকে সাথে নিয়ে মান্যবর হাই কমিশনার প্রথমে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের পক্ষে, এরপর হাই কমিশনের পক্ষে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। বাংলাদেশ কমিউনিটির পক্ষ থেকে একে একে নতুন শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে হাই কমিশনের সম্মেলন কক্ষে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। একুশের অপরাহ্ণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে কূটনীতিকবৃন্দ, ব্রুনাই সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদস্থ ব্যক্তি ও সুধি সমাজের সদস্যবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। ব্রুনাই সরকারের  Ministry of Culture, Youth and Sports এর একজন পদস্থ কর্মকর্তা অনুষ্ঠানে ‘গেস্ট অব অনার’ হিসেবে যোগদান করেন। পবিত্র কুরআন থেকে সুরা ফাতিহা পাঠের পর বাংলাদেশি শিশুদের ‘মোদের গরব মোদের আশা….” পরিবেশনের মধ্যদিয়ে এ বহুজাতিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হয়। St. Andrew’s School এর শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় মালয় সংগীত এবং Brunei Music Society শিল্পীগোষ্ঠিদের পরিবেশনায় ইংরেজি ধ্রুপদী সঙ্গীত এবং Reading and Literacy Association এর পরিবেশনায় মালয় কবিতা আবৃত্তি উপস্থিত অতিথিদেরকে মুগ্ধ করে। 

অনুষ্ঠানে মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী, মাননীয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী, মাননীয় বিচারপতি , মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, পররাষ্ট্রসচিব পৃথক ভিডিও বার্তায়  মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক  মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। বাংলাদেশ হাই কমিশনের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ব্রুনাইস্থ ভারত, যুক্তরাজ্য, কানাডা, রাশিয়া, জাপান, কম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, ফিলিপিন্স, তিমুর লেসেথো, পোল্যান্ড ও ইরান মিশনের কূটনীতিকবৃন্দ  নিজ নিজ ভাষায় আন্তর্জাতিক  মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদন করেন। এছাড়া মান্যবর হাই কমিশনারের অনুরোধে সাড়া দিয়ে অষ্ট্রেলিয়া থেকে জনাব নির্মল পাল, মাদাগাস্কারের নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত এবং মি. মার্সেলো (ব্রাজিল) ভিডিও বার্তার মাধ্যমে  আন্তর্জাতিক  মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বাণী প্রেরণ করেন।
অনুষ্ঠানে ড. মালয় জ্যেইটি’র সঞ্চালনায় বাংলা ও মালয় ভাষা নিয়ে একটি তুলনামূলক  আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। ব্রুনাইর বিশ্ববিদ্যালয়ে নিযুক্ত বাংলাদেশি ড. ইফতেখার ইকবাল, সহযোগী অধ্যাপক (ইতিহাস), ড. সোফিয়ানা আব্দুল্লাহ, চিত্রকর পেঙ্গিরান ওয়াহাব আলোচনায় অংশ দেন।
অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ ছিলো চিত্রকর পেঙ্গিরান ওয়াহাবের পরিকল্পনায় একটি ‘বর্ণমালার চিত্রকর্ম’। বিশাল ক্যানভাসে আঁকা শহীদ মিনার, সেই চিত্রপটের উপর অনুষ্ঠানের গেস্ট অব অনার, উপস্থিত কূটনীতিক কোরের সদস্যবৃন্দ, আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ একে একে  নিজ নিজ ভাষা ও বর্ণে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বিভিন্ন ভাষা ও বর্ণে মুহূর্তেই শহীদ মিনারটি একটি জীবন্ত ভাষাচিত্রকর্মে পরিণত হয়।
মান্যবর হাই কমিশনার নাহিদা রহমান সুমনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রথমসচিব (শ্রম) জিলাল হোসেন

আনোয়ারুল হক ভূইয়াঁ