ভারতে সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা পরপর দু’দিন নিম্নমুখী

0
144
COVID-19
COVID-19
ShyamSundarCoJwellers

ভারতে সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা পরপর দু’দিন নিম্নমুখী
দৈনিক নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা পরপর দু’দিন বেশি
ভারতে মোট টিকাকরণ ১৭.৫ কোটি ছাড়িয়েছে
এখনও পর্যন্ত ১৮-৪৪ বছর বয়সী ৩০ লক্ষের বেশি সুফলভোগীর টিকাকরণ

By PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১২ মে, ২০২১

ভারতে সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আজ কমে দাঁড়িয়েছে ৩৭ লক্ষ ৪ হাজার ৯৯, যা মোট আক্রান্তের সংখ্যার ১৫.৮৭ শতাংশ। অন্যদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১১,১২২টি কমেছে। এর ফলে, পরপর দু’দিন সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যায় নিম্নমুখী প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। দেশে ১৩টি রাজ্যে সুস্পষ্টভাবে করোনায় আক্রান্তের হার ৮২.৫১ শতাংশ।

দেশে আজ করোনায় সুস্থতার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯৩ লক্ষ ৮২ হাজার ৬৪২। জাতীয় স্তরে সুস্থতার হার ৮৩.০৪ শতাংশ। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৩৩৮ জন করোনামুক্ত হয়েছেন। দৈনিক নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় দ্বিতীয় দিনেও সুস্থতার সংখ্যা বেশি রয়েছে। এদিকে ১০টি রাজ্যে সুস্থতার হার ৭১.৫৮ শতাংশ। 

ভারত সরকার আন্তর্জাতিক মহলের কাছ থেকে পাওয়া কোভিড ত্রাণসামগ্রীগুলি দ্রুততার সঙ্গে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে বন্টন করছে। কোভিড সংক্রমণ প্রতিরোধে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রচেষ্টা আরও জোরদার করতে ভারত সরকারের এই উদ্যোগ। আন্তর্জাতিক মহলের কাছ থেকে ভারত এখনও পর্যন্ত ৯,২০০টি অক্সিজেন কনসেনট্রেটর, ৫,২৪৩টি অক্সিজেন সিলিন্ডার, ১৯টি অক্সিজেন জেনারেশন প্ল্যান্ট, ৫,৯১৩টি ভেন্টিলেটর / বাইপ্যাপ এবং ৩ লক্ষ ৪৪ হাজার রেমডেসিভির ওষুধের ভায়াল পেয়েছে। এই কোভিড ত্রাণসামগ্রীগুলি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে হস্তান্তরিত করা হয়েছে। এদিকে কেন্দ্রীয় সরকার আন্তর্জাতিক মহলের কাছ থেকে পাওয়া যাবতীয় কোভিড ত্রাণসামগ্রী রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে সড়কপথের পাশাপাশি বিমান ও রেলযোগে পৌঁছে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

দেশে কোভিড টিকাকরণের অভিযানের তৃতীয় পর্যায়ে আজ পর্যন্ত ১৭ কোটি ৫২ লক্ষের বেশি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। আজ সকাল ৭টা পর্যন্ত প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী দেশে মোট ১৭ কোটি ৫২ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯৯১টি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৯৫ লক্ষ ৮২ হাজার ৪৪৯ জন স্বাস্থ্যকর্মী প্রথম ডোজ এবং ৬৫ লক্ষ ৩৯ হাজার ৩৭৬ জন স্বাস্থ্যকর্মী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। অন্যদিকে, করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অগ্রভাগে থাকা ১ কোটি ৪১ লক্ষ ৪৯ হাজার ৬৩৪ জন কর্মী প্রথম ডোজ এবং ৭৯ লক্ষ ৫২ হাজার ৫৩৭ জন কর্মী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। ১৮-৪৫ বছর বয়সী ৩০ লক্ষ ৪৪ হাজার ৪৬৩ জন টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন। একইভাবে, ৪৫-৬০ বছর বয়সী ৫ কোটি ৫৮ লক্ষ ৮৩ হাজার ৪১৬ জন প্রথম ডোজ এবং ৭৮ লক্ষ ৩৬ হাজার ১৬৮ জন দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। এছাড়াও, ৬০ বছরের বেশি বয়সী ৫ কোটি ৩৯ লক্ষ ৫৯ হাজার ৭২১ জন প্রথম ডোজ এবং ১ কোটি ৬২ লক্ষ ৮৮ হাজার ১৭৬ জন দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। 

দেশে এখনও পর্যন্ত মোট টিকাকরণের ৬৬.৬৭ শতাংশই দেওয়া হয়েছে ১০টি রাজ্যে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮-৪৪ বছর বয়সী ৪ লক্ষ ৭৯ হাজার ২৮২ জন প্রথম ডোজ এবং ৩০ লক্ষ ৪৪ হাজার ৪৬৩ জন দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। কোভিড টিকাকরণ অভিযানের তৃতীয় পর্যায়ে সারা দেশে ১৮-৪৪ বছর বয়সীদের টিকাকরণ গত ১ মে থেকে শুরু হয়েছে। 

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪ লক্ষ ৪০ হাজারের বেশি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। টিকাকরণ অভিযানের ১১৬তম দিনে (১১ মে) ২৪ লক্ষ ৪৬ হাজার ৬৭৪টি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১০ লক্ষ ৯২ হাজার ৪৭২ জন প্রথম ডোজ এবং ১৩ লক্ষ ৫৪ হাজার ২২২ জন দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। 

এদিকে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩ লক্ষ ৪৮ হাজার ৪২১ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। ১০টি রাজ্যে আক্রান্তের হার ৭১.২২ শতাংশ। মহারাষ্ট্রে একদিনেই সর্বাধিক ৪০,৯৫৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। কর্ণাটকে আক্রান্তের সংখ্যা ৩৯,৫১০। অন্যদিকে কেরলে একদিনেই আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭,২৯০।

জাতীয় স্তরে কোভিডে মৃত্যু হার বর্তমানে কমে হয়েছে ১.০৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪,২০৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১০টি রাজ্যে মৃত্যু হার ৭৩.১৭ শতাংশ। মহারাষ্ট্রে একদিনেই সর্বাধিক ৭৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে কর্ণাটকে একদিনে মারা গেছেন ৪৮০ জন। 

Advertisements
IBGNewsCovidService
Bloodrush-2