Didi Mamata Kindly help poor Santhali Students – An appeal to CM Mamata Banerjee

0
659
Sanotali Language Seminer
Sanotali Language Seminer

Mamata Banerjee has done a lot for the tribal society of West Bengal and we do believe she will work for her subjects for ever but a small mistake or verlook has created a great trouble for many of the Santhali language student we will have to face a great pain in comming Madhyamik Exam as question paper will not be in their own language.

A detail artilce by eminent journalist Hirak Mukherjee reports in details.

Original report in Bengali  

হীরক মুখোপাধ্যায়,কলকাতা : মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সবিশেষ পাগলামীতে বর্তমান বিপাকে পড়েছেন ২২ টা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২১৯ জন সাঁওতালী ছাত্রছাত্রী ৷
মধ্যশিক্ষা পর্ষদ থেকে সম্প্রতি জানানো হয়েছে , এবছর যাঁরা অলচিকি লিপিতে পরীক্ষা দেবেন তাঁদের প্রশ্নপত্র বাংলা ভাষাতেই ছাপানো থাকবে ৷

মধ্যশিক্ষা পর্ষদ যদি শেষ পর্যন্ত নিজেদের মূর্খামির দৌরাত্ম এভাবেই বজায় রাখেন , তাহলে এখনই বলে দেওয়া যায় মাধ্যমিক পরীক্ষার সময় পরীক্ষা কেন্দ্রে গিয়ে ভাষাগত কারণে প্রশ্নপত্র না বোঝার ফলে চোখে সরষে ফুল দেখবেন ঐ ছাত্রছাত্রীরা ৷

আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে ছাত্রছাত্রীদের এই বিড়ম্বনার বিষয়ে মুখ খুলে আদিবাসী সোসিও-এডুকেশন্যাল এণ্ড কালচারাল এ্যাসোসিয়েশন ,ওয়েস্ট বেঙ্গল (এসিকা)-এর রাজ্য সভাপতি মদনমোহন বাস্কে বলেন , “যে বাচ্চারা প্রথম শ্রেণী থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত বাংলা হরফের সঙ্গে পরিচিত হওয়ারই কোনো সুযোগই পেলনা , তাদের সামনে যদি বাংলা ভাষায় প্রশ্নপত্র দেওয়া হয় তবে তারা কি বুঝবে ?”

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে এসিকা-র সাধারণ সম্পাদক সুবোধ হাঁসদা অভিযোগ করেন, “২০০৮ সাল থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহে সাঁওতালী ভাষার অলচিকি লিপিতে পঠন-পাঠন শুরু হয় ৷ সেই হিসাবে এই বছর প্রথম অলচিকি লিপিতে পরীক্ষা দিতে চলেছে সাঁওতালী মাধ্যমের পড়ুয়ারা ৷

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি , গত দুমাস যাবৎ মধ্যশিক্ষা পর্ষদ অলচিকি লিপিতে মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র ছাপাতে রহস্যজনক ভাবে টালবাহানা করছে ৷
ওঁনারা আমাদের জানিয়েছেন সাঁওতালী ভাষার প্রথম পত্র ও দ্বিতীয় পত্র ছাড়া বাকি প্রশ্নপত্র বাংলা ভাষাতেই হবে৷
এই তুঘলকি সিদ্ধান্তের কারণ রূপে তাঁরা জানিয়েছেন , ভাষাগত সমস্যার কারণে অলচিকি লিপিতে প্রশ্নপত্র করা সম্ভব নয় ৷

পরে দীর্ঘ বাদানুবাদের পর পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সচিব প্রশ্নপত্র অলচিকিতে মুদ্রণের জন্য আমাদের কাছে ইংরাজী থেকে সাঁওতালী ভাষার এক ডিক্শনারীও দাবী করেন ৷ আমরা সেই অভিধান তাঁর হাতে দিয়ে এলেও কোনো এক অজানা কারণে পঃবঃ মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এখনো মুখে কুলুপ এঁটে রয়েছেন ৷

অপরদিকে পর্ষদের এই তুঘলকি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আমরা বারবার শিক্ষামন্ত্রী ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে দেখা করার জন্য সময় চাইলেও , তিনি সময় দিচ্ছেননা ৷

এমতাবস্থায় ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে আমরা আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি বিকাশ ভবন অভিযান করতে চলেছি ৷”

পরে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে এসিকার সাধারণ সম্পাদক সুবোধ হাঁসদা আরো বলেন “প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়ে যাওয়ার আতঙ্কেই নাকি ওঁনাদের বাংলা ভাষায় প্রশ্নপত্র ছাপানোর এই সিদ্ধান্ত ৷ শুধু তাই নয় এবার নাকি সাঁওতালী ভাষার পরীক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র বানাচ্ছেন কলেজ শিক্ষকরা ৷ ওঁনারা যদি প্রশ্নপত্রে নিজেদের বেশি পাণ্ডিত্য দেখাতে চান, সেক্ষেত্রেও অবস্থা ভয়াবহ হতে বাধ্য ৷”

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে , অলচিকি লিপিতেই যখন সাঁওতালী ভাষার প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র ছাপানো সম্ভব হচ্ছে , তখন অন্যগুলো কেন নয় ?একি শুধুই ভাষাগত কারণ নাকি অন্যকিছু !

সাঁওতালী ভাষায় যেসব শিক্ষক-শিক্ষিকারা বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ইতিহাস ভুগোল বিজ্ঞান পড়ান , তাঁরা কোথায় গেলেন ! তাঁদের ডেকে পাঠালেইতো সমস্যার সমাধান হয়ে যেত ৷

প্রসঙ্গতঃ উল্লেখয়োগ্য , পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাধে আক্ষেপ করে বলেননা ” বাম আমলে নিযুক্ত সরকারী কর্মচারীদের মন থেকে কাজ না করার ইচ্ছেটা এখনো গেলনা ৷”

পঃবঃ মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পদাধিকারীদের কাছে আমাদের একটাই জিজ্ঞাস্য , ইংরাজী বা বাংলা মাধ্যমে পড়া আপনাদের ছেলেমেয়েদের হাতে পরীক্ষার সময় অলচিকি লিপির প্রশ্নপত্র তুলে দেওয়া হলে ওদের কি দুর্গতি হবে ভেবে দেখেছেন কি ?

যদি এই সাধারণ প্রশ্নের গুরুত্ত্ব বুঝতে পারেন , তাহলে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষা বিভাগের মুখে কালি না লাগিয়ে কিছু সদর্থক ভূমিকা পালন করুন ৷