After tremendous success in retail stores, Tantuja looks to capture e-commerce platform

0
2572
Bengal Sari
Bengal Sari
0 0
Azadi Ka Amrit Mahoutsav

InterServer Web Hosting and VPS
Read Time:7 Minute, 20 Second

After tremendous success in retail stores, Tantuja looks to capture e-commerce platform

After tremendous success in retail stores, Tantuja looks to capture e-commerce platform

The huge profits are enough to tell the story of Tantuja, which recently launched a successful partnership with Flipkart and Amazon. Tantuja’s products, especially sarees, are now available on these most popular of e-commerce platforms.

Once ailing due to financial crisis, the organisation under West Bengal State Handloom Weavers Cooperative Society made a record operational profit of Rs 3.5 crore against a turnover of Rs 123.19 crore in the financial year 2015-16.

The profit margin was Rs 2.05 crore in 2014-15 against a turnover of Rs 106.67 crore.

In the current year, that is, 2016-17, the turnover has already crossed crossed Rs 125 crore.

“We have tied up with Amazon. We were selling Tantuja sarees through Flipkart and have clocked sales of Rs 50 lakh”, said state MSME Minister Swapan Debnath. Tantuja, a State Government undertaking, has 48 stores as of now and plans to open at least two more stores in Digha and Mumbai soon.

“We are expanding our stores and also harnessing the multiple e-commerce marketplace portals to expand our reach”, the Minister added.

Biswa Bangla stores at airports and at a few major locations, including the national capital, sell Tantuja products as well. However, Tantuja products will not offer any special discounts in the online marketplace and will maintain the same price strategy for both online and offline stores.

Meanwhile, Tantuja is planning an exclusive line of Banarasi wedding sarees by roping in weavers from Varanasi. These exclusive sarees will cater to niche clientele across the world. This measure will help in raking in higher revenues in the years to come, MSME Department officials believe.

The State Government would consider capex support for expansion of Tantuja, but the Government will not subsidise operational expenses.

Tantuja has been churning out profits over the last three years. The profits have made it one of the best turnaround stories of Bengal. Chief Minister Mamata Banerjee has undertaken a personal endeavour to revitalise the organisation; her Tant Sathi Scheme has played a vital role. An amount of Rs 120 crore has now been allotted to Tant Sathi for paying as compensation to ‘tant’ (handloom) weavers.

Speaking about the use of multiple marketing channels by Tantuja, a senior official at the State secretariat, Nabanna said that the adoption of ‘omni-channel marketing route’ to expand Tantuja’s reach is also the Chief Minister’s brainchild. It will help in reaching out to more customers, besides introducing new products.

Tantuja, set up in 1945, has been awarded the esteemed Images Retail Award by a private organisation in Mumbai.

It has also been acknowledged as the ‘Best Turnaround Story’ by Indian Retail Forum, the biggest retail platform in India. This award was given for Tantuja’s innovative branding, marketing and retailing strategies and for concept building, after having been a loss-making company for the last 25 years.

The erstwhile State Government established Tantuja to give healthy promotion to the weaving and craftsmanship which are a part of Bengal’s unique culture.

However, militant trade unionism and poor work culture turned it into a loss-making entity and eventually became a burden to the Government. Now, it is once again on the path of growth.

 

 

খুচরো ব্যাবসায়ে সাফল্যের পর ইকমার্সেও ঢুকতে চলেছে তন্তুজ

 

ইকমার্সে অন্যতম জনপ্রিয় সংস্থা ফ্লিপকার্ট ও অ্যামাজনের সঙ্গে অংশীদারিতে ব্যাবসার এক নতুন দিক খুলে খুব সাফল্যের সঙ্গে ব্যাবসা করছে তন্তুজ। এই সকল ওয়েবসাইটে তন্তুজর শাড়ি এখন খুবই জনপ্রিয়।

একসময় সরকারের এই সংস্থা ধুঁকতে থাকলেও এই ২০১৫-১৬ অর্থবর্ষে সাড়ে তিন কোটি টাকা লাভ করেছে তন্তুজ। আগের বছর লাভ করে দুকোটি টাকারও বেশি।

এই বছরের ব্যাবসা ইতিমধ্যেই ১২৫ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

ওই দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানান, আমরা অ্যামাজনের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি, ফ্লিপকার্টের মাধ্যমে আমরা ৫০ লাখ টাকার ব্যাবসা করতে পেরেছি। তিনি আরও বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের ৪৮তি বিপনন কেন্দ্র আছে, তবে খুব শীঘ্রই আমরা দিঘা ও মুম্বাইতে দুটি কেন্দ্র খুলতে পরিকল্পনা করছি। আমরা আমাদের বিপনন কেন্দ্রের পাশাপাশি আরও ইকমার্সের সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি আমাদের ব্যাপ্তি বাড়াতে।

বিশ্ববাংলার বিপনন কেন্দ্রগুলি যা দিল্লি, বিমানবন্দর ও বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য জায়গায় আছে, তারাও তন্তুজর সামগ্রি বিক্রয় করে থাকে। তন্তুজ ইকমার্সে আলাদা কোন ছাড় দেবে না দামের ক্ষেত্রে।

ইতিমধ্যে, কাশীর বেনারসি শাড়ি প্রস্তুতকারক তাঁতিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে বেনারসি শাড়িও তৈরি করা শুরু করতে চলেছে। এইধরনের শাড়িগুলি বিশ্বব্যাপী উচ্চবিত্ত মানুষদের উদ্দেশ্য করে তৈরি করা হবে। ওই সংস্থার আধিকারিকরা আশা করেন, এর ফলে সংস্থার বেশ ভাল আয় হবে।

রাজ্য সরকার এই প্রকল্পে কোন ভর্তুকি দেবে না কিন্তু সর্বপ্রকার সাহায্য করবে।

তন্তুজ সবেমাত্র গত তিনবছর ধরে লাভের মুখ দেখছে। মুখ্যমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় তাঁত সাথী প্রকল্প এতে একটি গুরুত্তপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। ওই প্রকল্পের মাধ্যমে এখনও পর্যন্ত ১২০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে তাঁতিদের সাহায্যার্থে।

নবান্নের এক উচ্চপদস্থ সচিব জানান, বিপননের জন্য শুধু বিপনন কেন্দ্রর ওপর ভরসা না করে আরও নানা ভাবে বিক্রয় করার উদ্যোগটিও মুখ্যমন্ত্রীর ভাবনা থেকেই এসেছে। নতুন দ্রব্য তৈরির পাশাপাশি নতুন নতুন ভাবে পণ্য বিক্রয় করলে নতুন অনেক ক্রেতা পাওয়া যাবে।

১৯৪৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া এই সংস্থাটি, মুম্বাইয়ের এক বেসরকারি সংস্থার দ্বারা “খুচরো ব্যাবসায়ে সম্মানিত প্রতিচ্ছবির” জন্য পুরস্কৃত।

ভারতীয় খুচরো ব্যাবসায়ী ফোরাম এই সংস্থাকে ভূষিত করেছে “সেরা ঘুরে দাঁড়ানোর রুপকথা” আক্ষায়। টানা ২৫ বছর লোকসানে থাকা সংস্থাটি নিজের প্রচেষ্টায় ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য।

বাংলার সংস্কৃতির ধারা অব্যাহত রেখে রাজ্য সরকার প্রধানত তাঁতি ও শিল্পীদের উন্নয়নের জন্যই এই সংস্থাটি গড়ে তোলে।

জঙ্গি শ্রমিক ইউনিয়ন ও কর্মসংস্কৃতি খারাপ থাকার কারনে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই সংস্থাটি লোকসানের মুখ দেখতে শুরু করে ও আসতে আসতে সরকারের বোঝা হয়ে দাড়ায়। এখন আবার এই সংস্থাটি রাজ্যের কাছে গর্বের বিষয়।

About Post Author

Editor Desk

Antara Tripathy M.Sc., B.Ed. by qualification and bring 15 years of media reporting experience.. Coverred many illustarted events like, G20, ICC,MCCI,British High Commission, Bangladesh etc. She took over from the founder Editor of IBG NEWS Suman Munshi (15/Mar/2012- 09/Aug/2018 and October 2020 to 13 June 2023).
Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
Advertisements

USD