শিয়ালদহে পালিত হল অসুর স্মরণ সভা – ‘অসুর খুন্টা’র উদ্বোধনী প্রোগ্রামে ফারুক আহমেদ

0
582
Asur Khunta at Sealdah
Asur Khunta at Sealdah

শিয়ালদহে পালিত হল অসুর স্মরণ সভা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলকাতা:

সংবিধান বাঁচাও সমিতির ডাকে ৬ ডিসেম্বর কলকাতায় মহা মিছিল ও জনসভা করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মহালয়ার দিন রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় অসুর স্মরণ সভা পালিত হচ্ছে। এদিন বাংলার প্রতি প্রান্তের মতো শিয়ালদহে অসুর স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন সমীর কুমার দাস, মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, কঙ্কন গুঁড়ি, বীরেন মাহাতো, শরদিন্দু উদ্দীপন, নজমুল আরেফিন, লক্ষীকান্ত হাসদা, সুচেতা গোলদার, অনন্ত আাচার্য়, পীযুস গায়েন, আনিসুর রহমান, রঘুনাথ মন্ডল, বিশ্বনাথ মন্ডল, প্রশান্ত বিশ্বাস, মানিক দাস প্রমুখ।

‘অসুর খুন্টা’র উদ্বোধনী প্রোগ্রামে বিশিষ্টজনের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নবচেতনার সর্বভারতীয় আহ্বায়ক তথা উদার আকাশ পত্রিকা ও পাবলিকেশনের কর্ণধার ফারুক আহমেদ।

শরদিন্দু উদ্দীপন জানালেন,দাশাই পরব অসুর-আদিবাসীদের একটি শোক পালনের পরব।

পাঁচদিন ধরে চলে এই শোক পালন। কারণ বিদেশী দেবতারা তাদের প্রিয় রাজাকে নারীকে দিয়ে হত্যা করেছে অথবা বন্দী করে নিয়ে গেছে গোপন ডেরায়। তাই নারীর ছদ্যবেশে যোদ্ধারা তাদের রাজাকে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ে। হাতের শস্ত্রগুলিকে বাদ্যযন্ত্রের আদল দেওয়া হয়। যাতে সন্ধিক্ষনে যুদ্ধ বিজয়ে সেগুলো কাজে লাগে।

মুন্ডা, কোল আদিবাসীরা দাবি করেন, দুর্গা তাদের মেয়ে। দেবতারা তাকে বেশ্যা বানায়। হাঁড়ি সম্প্রদায়ের দাবি, চণ্ডী তাঁদের মেয়ে। দেবতারা তাকে দিয়ে তাঁদের রাজাকে হত্যা করে।

আজও বুক চাপড়ে ‘ও হায়রে! ও হায়রে!’ আওয়াজ করে ভুয়াং নাচের মাধ্যমে আদিবাসীরা তাঁদের রাজাকে খুঁজে বেড়ায়। দুর্গার হাতে বৃহৎ বঙ্গের রাজা বোঙ্গাসুর বা উদুরদুর্গা, বা হুদুরদুর্গার (হুদুর মানে বজ্র) হত্যা কাহিনী এভাবেই লোকায়ত হয়ে আছে আদিবাসীদের মধ্যে। আদিবাসী সত্তায় রাজত্ব হারানোর স্মৃতি এখনও সমান ভাবেই বর্তমান।

বিদেশী দেবতারা এখনো মানব হত্যার মন্ত্রগুলি বিজয় উল্লাসে উচ্চারণ করে চলছে। মানুষ মারাকে ধর্মীয় মোড়কে পরিবেশন করছে। আশার কথা। ধ্বংস হয়ে যাওয়া ইতিহাস আবার সবলে উঠে আসছে। কৈফিয়ত আদায় করে ছাড়ছে।

জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুরুলিয়ার ভালাগাড়া শালবনির কেন্দাশোল হয়ে উত্তর বঙ্গের উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদা, মুর্শিদাবাদ, বীরভূম, বাঁকুড়া প্রভৃতি আদিবাসী অঞ্চলে এই মহিষাসূর স্মরণ সভা ছড়িয়ে পড়েছে। গত ২০১৭ সালে প্রায় ডেড় হাজার জায়গায় এই মহিষাসূর স্মরণ সভা ছড়িয়ে পড়েছে। ইতিহাস সচেতন আত্ম মর্যাদা সম্পন্ন মূলনিবাসীরা অসুর স্মরণ শুরু করে দিয়েছেন। এ বছর সেটা বিস্তারিত হয়ে মালদা, দিনাজপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় সর্ব ধর্মের মানুষ দলিত, মুসলিমদের মধ্যে ছড়াতে শুরু করেছে।

এই স্মরণ সভা মানবতার সভা। অসুরের স্মরণ সভার জয় হোক সর্বত্র।